ঢাকা২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পাঁচটি জিনিস আসার পূর্বে তার বিপরীত পাঁচটি জিনিসের কদর করা উচিত

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন

এপ্রিল ২৫, ২০২২ ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

———-
রাসূল (সা.) বলেন—
اغتنم خمسا قبل خمس: شبابك قبل هرمك، وصحتك قبل سقمك، وغناك قبل فقرك، وفراغك قبل شغلك، وحياتك قبل موتك

হযরত উমর ইবনে মাইমুন আদভী(রা.) হতে বর্ণিত রাসূল(সা.) বলেনঃ পাঁচটি অবস্থার সম্মুখীন হওয়া পূর্বে অপর পাঁচটি অবস্থার মূল্যায়ন করো। যৌবনকে বার্ধক্যে উপনীত হওয়ার পূর্বে, সুস্থতাকে অসুস্থতা হওয়ার পূর্বে, ধন্যাঢ্যতাকে দারিদ্র্যতার পূর্বে, অবসরতাকে ব্যস্ততা আসার পূর্বে, আর জীবনকে মৃত্যু আসার পূর্বে। ( তিরমিযী)

উপরোক্ত হাদিসটি হবে ইনশাআল্লাহ আমাদের আলোচনার বিষয়। এই হাদিসে বলা হইছে ৫ প্রকার অবস্থায় উপনীত হওয়ার পূর্বে তার বিপরীত ৫ প্রকার অবস্থাকে মূল্যায়ন করার জন্য।

নিম্নে হাদীসটির বিস্তারিত আলোচনা করা হলো:

(১) যৌবন

আমাদের জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হলো যৌবন কাল। কিয়ামতের দিন আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন বিশেষভাবে যৌবনের হিসাব নিবেন।
হায় আফসোস!!!! আমরা আমাদের যৌবনটাকে, এই রকম এক গুরুত্ববহ সময়কে হেলায় হেলায় নিঃশেষ করে দিচ্ছি। অথচ আমরা সবাই এটা জানি যে, যৌবনের সীমানা পেরিয়ে বার্ধক্যে পদার্পন করার গ্যারান্টি আমাদের কাছে নাই। আজকের টাগরা যুবক যে কাল বার্ধক্য বা মৃত্যু কোলো ঢলে পরবে না, কোনো কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে যাবে না তার কি কোনো গ্যারান্টি আছে? এ ব্যাপার কি কেউ নিশ্চয়তা দিতে পারবে ??? তাই বলছি আমার ভাই ও বোনেরা এই শক্তি ও সার্মথ্যকে কাজে লাগাও। নিজের যৌবনকে পাপ কাজ থেকে বিরত রেখে, নিজেকে প্রভুর সন্তুষ্ট অর্জনের জন্য আত্মনিয়োগ করি ,আজ হয়তো এবাদত করার সামর্থ্য আছে, কিন্তু কাল হয়তো মৃত্যু এসে উপস্থিত হতে পারে আপনার আমার দুয়ারে। তাই আসুন সময় থাকতেই যৌবনকালকে কাজে লাগায়।

#আল্লামা শেখ সা’দী( রহ.) বলেনঃ” বার্ধক্যে তো জালিম, হিংস্র প্রাণীও পরহেজগার, সংযমি হয়ে যায়।কারণ তখন সে থাবা বিস্তার করে খেতে পারে না। তাই সে কারও উপর হামলা করে না। আর যৌবনকালে রবের সন্তুষ্টির জন্যই এবাদত ও তওবা করা নবী আলাইহিস সালামদের অভ্যাস।”

(২) সুস্থতা

আজ সুস্থ আছি, কিন্তু কাল যে সুস্থ থাকব তার কি গ্যারান্টি আছে? মনে রেখোঃ পৃথিবীতে কোনো মানুষ নেই যাকে অসুস্থতা গ্রাস করেনি। অবশ্যই অসুস্থতা আসতে পারে। কিন্তু কখন, কোথা হতে, কিভাবে আসবে তা কারো জানা নেই। তাই সুস্থতাকে গণিমত মনে কর এবং আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া আদায় কর।

(৩) স্বচ্ছলতা

আজ তুমি স্বচ্ছল। তুমি হয়তো অনেক সম্পদের মালিক, কিন্তু তোমার কি জানা আছে তোমার এই অবস্থা কত দিন আপন অবস্থায় বহাল থাকবে? এমন অনেক মানুষ দেখেছি যার অবস্থা দিনাদিন পরিবর্তন হয়ে গেছে। দিবা নিশি ঘূর্ণিপাকে পড়ে তারা আজ ফকির।
সম্পদের প্রাচুর্যতা যেন তোমাকে আল্লাহর নাফরমানিতে লিপ্ত না করে। তুমি কখন কোন অবস্থায় পতিত হবে তা আল্লাহ্ তায়ালাই ভালো জানেন। তাই স্বচ্ছলতাকে গণিমত মনে কর। টাকা-পয়সা, ধন-সম্পদ আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টির জন্য আল্লাহর রাস্তায় ব্যয় করো এবং নিজের আখিরাতের জীবনকে সু-সজ্জিত কর।

(৪) অবসরতা

নিজের অবসর সময়কে যথাযথ কাজে লাগানো উচিত। এটা আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীনের এক বিশেষ নিয়ামত।
আল্লাহ তায়ালা কালামে মাজিদে বলেল–فاذا فرغت فانصب
অর্থাৎ অবসর হওয়ার সাথে সাথেই নিজেকে মহান রবের এবাদতে আত্মনিয়োগ করো।

এই অবসরতা সর্বদা বিদ্যমান থাকে না। বরং এক সময় এমন ব্যস্ততা আসে যে নিঃশ্বাস ফেলার ফুসরত পাওয়া যায় না। তাই অবসর সময়কে কাজে লাগানো উচিত।

(৫) মৃত্যু

মৃত্যু এমন এক বাস্তবতা যা কোন আস্তিক নাস্তিক কেউ অস্বীকার করতে পারে না। আমাদের সর্বদা মনে রাখা উচিত কোনো মানুষই অমর নয়। হঠাৎ মৃত্যু এসে উপস্থিত হতে পারে আপনার আমার দোয়ারে। আপনার আমার মত অনেক সুঠাম দেহের মানুষ পৃথিবীতে ছিল কিন্তু মৃত্যু তাদের নাম নিশানা মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছে, আর মৃত্যুর সাথে সাথে ভালো- মন্দ, সকল ক্রিয়া- কর্যকলাপ বন্ধ হয়ে যাবে। তাই আসুন মৃত্যু আসার পূর্বে নিজের মূল্যবান জীবনের প্রতিটা মুহূর্তকে কাজে লাগায়। আল্লাহ তাআলা আমাদের সকলকে আলোচনা বুঝে আমল করার তৌফিক দান করুক —(আমিন)—–

আমাদের সকলেরই এই কথা গুলা মন দিয়ে ভেবে দেখা উচিত। যদি আজ জীবনের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিটি মুহূর্তকে কাজে না লাগায়, তাহলে কঠিন বিচার দিবসে আল্লাহ তাআলার কাছে কি জবাব দেবো? একটুও ভয় করে না সেই কাল হাশরের কথা মনে পড়লে ? যেদিন নবীগণ পর্যন্ত ইয়া নাফসি ইয়া নাফসি বলতে থাকবে। আমাদের অন্তর কি এতটাই শক্ত হয়ে গেছে? জাহান্নামের ভয়াবহ আযাবের কথা শুনলে একটুও কি অন্তর কেঁপে ওঠে না? এখনো সময় আছে, ফিরে আসুন রবের দিকে,আল্লাহর নিকট নিজের কৃত কর্মের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করুন। দেখবেন, ইনশাআল্লাহ দুনিয়ার জীবন যেমন সুখময় ও আনন্দদায়ক হবে , ঠিক তেমনি আখিরাত জীবনেও জান্নাত লাভের মাধ্যমে চূড়ান্ত সফলতা অর্জন করবেন, ইনশাআল্লাহ।

আল্লাহ্ রব্বুল আলামীন আমাদের এর উপর আমল করার তৌফিক দান করুন। সকলকে সহিহ্ বুঝ দান করুন। সকলকে হিদায়াত দান করুন। ( আল্লাহ্ হুম্মা আমিন)

লেখক ঃ
মাওলানা ওবাইদুল্লাহ,
ইমাম,কাঙ্গালিয়া জামে মসজিদ। নরসিংদী।।

সম্পর্কিত পোস্ট