নীলফামারীতে প্রতিপক্ষের আঘাতে ইউ পি সদস্যের স্ত্রী হাসপাতালে

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ২:২৮ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৭, ২০২০

সাগর চন্দ রায়, নীলফামারী :

পূর্ব শত্রুতার জেরে মাছ চুরিকে কেন্দ্র করে সাবেক ইউ,পি সদস্য ও তার পরিবারকে বেধরক পিটিয়েছে প্রতিপক্ষ। এর ফলে মারাত্মক হাড় ভাঙ্গা জখম হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছেন লক্ষীচাপ ইউনিয়নের সাবেক ইউ,পি সদস্য আকবর আলীর স্ত্রী সায়রা বেগম। ঘটনাটি ঘটেছে জেলার সদর উপজেলার লক্ষীচাপ ইউনিয়নের সহদেব বড়গাছা গ্রামে।

অভিযোগে বর্নিত, সাবেক ইউ,পি সদস্যের ছেলে রিপন ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত পুটিমারী ব্রীজের বিলের ধারে ডারকি বসিয়ে দেশীয় মাছ ধরেন। প্রায়সই তার (রিপনের)বসানো ডারকি একই গ্রামের অভিযুক্ত প্রতিপক্ষ্ ডালিম ডারকিতে আটকানো বিভিন্ন জাতের দেশীয় মাছ চুরির অভিযোগ আনলে উভয়ের মধ্যে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হয়। এরপর সেখানে উপস্থিত হয় সাবেক ইউ,পি সদস্য আকবর আলী ও তার স্ত্রী সায়রা বেগমসহ স্থানীয়রা।

এসময় ডালিম, কৃষ্ণ, অতুল, নিতাই, ধনঞ্জয়, হরিপদরা উত্তেজিত হয়ে সাবেক ইউ,পি সদস্য আকবর আলীসহ তার ছেলে রিপন ও স্ত্রী সায়রা বেগমকে বেধরক মারপিট করে। পরে মারাত্মক আঘাত পেয়ে হাড় ভাঙ্গা জখম অবস্থায় স্থানীয়রা সায়রা বেগমকে আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে, প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সায়রা বেগমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক।
এ বিষয়ে লক্ষীচাপ ইউনিয়নের সাবেক ইউ,পি সদস্য আকবর আলী জানান, “আমি বিগত দুইবারের নির্বাচিত ইউ,পি সদস্য।প্রতিপক্ষ্য ডালিম এর সাথে আমার দীর্ঘদিন যাবত মনোমালিন্যতা চলছে।

পূর্ব শত্রুতার জেরে ডালিম আমার ছেলের বসানো ডারকির মাছ চুরি করার প্রাক্কালে আমার ছেলে দেখতে পেয়ে বাধা দেয়। আর তখনই ডালিমসহ কৃষ্ণ, অতুল, নিতাই, ধনঞ্জয়, হরিপদরা আমার ছেলে রিপনকে এলোপাথারী মারপিট শুরু করে। খবর পেয়ে আমিসহ আমার স্ত্রী সায়রা বেগম সেখানে গেলে, তারা আমাকে ও আমার স্ত্রীকে বেধরক মারপিট করে। এরফলে আমার স্ত্রী সায়রা বেগম অভিযুক্তদের দ্বারা পায়ে আঘাত পেয়ে গুরুত্বর হাড় ভাঙ্গা জখম প্রাপ্ত হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীনে রয়েছে।”

বিষয়টি নিয়ে সরেজমিনে গিয়ে অভিযুক্ত চৈতারাম রায়ের ছেলে ডালিম, মতিলাল ভুলা রায়ের ছেলে কৃষ্ণ রায় ও খগেন চন্দ্র রায়ের ছেলে অতুল চন্দ্র রায়ের সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে, “তারা এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করবেন না” বলে সাংবাদিকদের সাফ জানিয়ে দিয়ে বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান তারা।