সোমবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
আমাদের সম্পর্কে
যোগাযোগ

নাগরপুরে এই প্রথম কর্মসূচি বিহীন গণহত্যা দিবস : সুশীল সমাজের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

অক্টোবর ২৬, ২০২১
প্রিন্ট
নিউজ ভিশন

আজিজুল হক বাবু,
নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি ঃ

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে গতকাল ( ২৫ অক্টোবর) গণহত্যা দিবস গেলেও প্রতিবারের মতো এইবার উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্মরণীয় এই দিনটি পালন করা হয়নি। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর এই প্রথম নাগরপুরে মুক্তিযুদ্ধের নির্মম ইতিহাস মিশ্রিত এই দিবস স্মরণ করা হয়নি। এতে স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ও সুশীল সমাজের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। উপজেলার গয়হাটা ইউনিয়নের বনগ্রাম এলাকাবাসীরা বলছে, প্রতিবছর বনগ্রাম এলাকায় অবস্থিত গণকবরে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে উপজেলা প্রশাসন, বীর মুক্তিযোদ্ধা সহ নানা শ্রেণী-পেশার জনসাধারণের সমাবেশ ঘটে এবং শ্রদ্ধাঞ্জলি সহ দোয়া-মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু এবারের চিত্র একদমই ভিন্ন! স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কিছু সংখ্যক এলাকাবাসী দিনটি পালন করলেও দেখা যায়নি নাগরপুর উপজেলা প্রশাসনের কোনো কর্মকর্তাকে। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমিটি না থাকায় এদিক থেকেও দিবসটি পালনে কাউকে উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি।
নাগরপুর উপজেলা সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সুজায়েত হোসেন গণহত্যা দিবস পালন না হওয়ায় আক্ষেপ নিয়ে বলেন, আমরা নাগরপুর উপজেলা প্রশাসনকে সাথে নিয়ে প্রতিবছর এই গণহত্যা দিবস পালন করতাম। এই দিনে (২৫ অক্টোবর) শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বীর মুক্তিযোদ্ধা, নিহত বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সহ স্থানীয় এলাকাবাসীরা বনগ্রাম গণকবর প্রাঙ্গনে উপস্থিত হয় । বর্তমান নাগরপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার কেন এই গুরুত্বপূর্ণ দিবসটি পালন করে নাই, সেটা তিনিই ভালো বলতে পারবেন। বর্তমানে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমিটি নেই বলেই এমনটা হয়েছে বলে আমি মনে করি । মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি সংরক্ষণে ও তাদের স্মরণে ও শ্রদ্ধা নিবেদনে অতিদ্রæত সকল জেলা- উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচনের জোর দাবী জানাচ্ছি।
উক্ত বিষয়ে নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সিফাত-ই-জাহান এর সরকারি নাম্বারে একাধিকার ফোন করা হলেও তার সাথে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি।
১৯৭১ সালের ২৫ অক্টোবর উপজেলার গয়হাটা ইউনিয়নের বনগ্রামের রসুলপুর গ্রামে হানাদার বাহিনী কর্তৃক বর্বরোচিত হামলায় সাধারণ গ্রামবাসী সহ মোট ৫৭ বীর মুক্তিযোদ্ধা কে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয় ও আশেপাশের প্রায় ১২৯ টি বসত বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ধ্বংস যজ্ঞ চালানো হয়। হানাদার বাহিনী চলে গেলে গ্রামবাসীদের সহায়তায় শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বনগ্রাম এলাকায় গণকবর দেওয়া হয়। স্থানীয় সূত্র মতে, ১৯৭১ সনের ২১ অক্টোবর বনগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান নিয়েছে এমন সংবাদ পেয়ে সিরাজগঞ্জ থেকে গান-বোট নিয়ে পাক হানাদার বাহিনী বনগ্রাম এলাকা আক্রমণ কওে এবং শুরু হয় সম্মুখ যুদ্ধ। এ যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর ১ মেজর সহ ৩ জন নিহত হয়। পরবর্তী সময়ে পাক সেনারা ব্যাপক প্রস্ততি নিয়ে ২৫ অক্টোবর রাতে বনগ্রাম এলাকা আক্রমণ করে।

সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
logo

নিউজ ভিশন বাংলাদেশের একটি পাঠক প্রিয় অনলাইন সংবাদপত্র। আমরা নিরপেক্ষ, পেশাদারিত্ব তথ্যনির্ভর, নৈতিক সাংবাদিকতায় বিশ্বাসী।

সম্পাদক ও প্রকাশক : মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম

ঢাকা অফিস: ইকুরিয়া বাজার,হাসনাবাদ,দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ,ঢাকা-১৩১০।

চট্টগ্রাম অফিস: একে টাওয়ার,শাহ আমানত সংযোগ সেতু রোড,বাকলিয়া,চট্টগ্রাম |

সিলেট অফিস: বরকতিয়া মার্কেট,আম্বরখানা,সিলেট | রংপুর অফিস : সাকিন ভিলা, শাপলা চত্ত্বর, রংপুর |

+8801789372328, +8801829934487 newsvision71@gmail.com, https://newsvisionbd.com
Copyright@ 2021 নিউজ ভিশন |
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ‌্য মন্ত্রণালয়ে আবেদিত ।