ঢাকা১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নলডাঙ্গা উমেশ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে ঝাড়ুদার পদে দীর্ঘদিন কাজ করার পরেও চাকুরী পাননি কল্পনা রানী

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন

ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২১ ৯:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আব্দুল মুনতাকিন জুয়েল, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধিঃ

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার নলডাঙ্গা উমেশ চন্দ্র উ”চ বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণির (ঝাড়–দার) কর্মচারী পদে দীর্ঘদিন কাজ করার পরেও চাকুরী পাননি কল্পনা রানী দাস।
অভিযোগে জানা গেছে, সাদুল্লাপুর উপজেলার নলডাঙ্গা উমেশ চন্দ্র উ”চ বিদ্যালয়ে কল্পনা রানী দাসের শ^াশুড়ী মায়া রানী দাস গত ১৯৮৫ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ঝাড়ুদার পদে শ্রম দিয়ে আসছিলেন। তিনি মৃত্যু বরণ করলে তার ছেলে রনজিৎ কুমার দাস ও তার স্ত্রী কল্পনা রানী দাস ওই পদে ২০০৬ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত নিয়মিতভাবে কাজ করে আসছেন। বর্তমানে উক্ত বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণি (ঝাড়ুদার) পদে গত ২০ ডিসেম্বর ২০২০ ইং তারিখে একটি ¯’ানীয় পত্রিকায় নিয়োগ প্রচারিত হলে কল্পনা রানী দাস আবেদন করেন। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ আব্দুস সালাম ও প্রধান শিক্ষক সুনীল কুমার গাঙ্গুলী কল্পনা রানী দাসকে উক্ত পদে নিয়োগ প্রদানের আশ^াস প্রদান করলে কল্পনা রানী দাস নিয়োগ পরীক্ষায় যথা নিয়মে অংশগ্রহণ করেন। গত ১৮ ফেব্রæয়ারি ২০২১ ইং তারিখে নিয়োগ পরীক্ষা গাইবান্ধা সরকারি বালক উ”চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় এবং ওই নিয়োগ পরীক্ষায় ৭জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করে। প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক উক্ত পদে কল্পনা রানী দাসকে নিয়োগ প্রদানের আশ^াস দেওয়া শর্তেও শাওন কুমার দাসকে যোগসাজসে অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ প্রদান করেন।
এব্যাপারে কল্পনা রানী দাস উক্ত পদে চাকুরী না পাওয়ায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন এবং জেলা প্রশাসক বরাবরে প্রতিকার চেয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

সম্পর্কিত পোস্ট