দোয়ারাবাজারে সেশন ফি ছাড়া মিলছে না বিনামূল্যের বই,নেওয়া হচ্ছে অতিরিক্ত ভর্তি ফি

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ৭:৪৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১২, ২০২০

ষ্টাফ রিপোর্টার,সুনামগঞ্জ :

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে ভর্তি ও সেশন ফির ভারে নুয়ে পড়ছে শিক্ষার মেরুদণ্ড। টাকা ছাড়া মিলছে না মাধ্যমিক স্তরের স্কুলগুলোতে সরকারি বিনামূল্যের বই। ভর্তি সেশন ফির অজুহাতে বই উৎসবের দিনও বই পায়নি অধিকাংশ শিক্ষার্থী। ফলে বই না নিয়ে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে শিক্ষার্থীদের।

জানা গেছে, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী ১ জানুয়ারি কোনোরকম শর্ত ছাড়াই শিক্ষার্থীরা নতুন শিক্ষাবর্ষে বিনামূল্যে বই পাওয়ার কথা কিন্তু দোয়ারাবাজারে উপজেলার মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে ভর্তি সেশন ফি ছাড়া বিনামূল্যের বই দেয়া হয়নি। ফলে নতুন শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হলেও নতুন বইয়ের সঙ্গে পরিচয় ঘটেনি শিক্ষার্থীদের। সরকারের যে মহৎ উদ্দেশ্যে বাস্তবায়নের জন্য বিনামূল্যে বই দিচ্ছেন তা থেকে বঞ্চিত হয়েছে শিক্ষার্থীরা।

সরজমিনে দেখা গেছে, বড়খাল স্কুল এন্ড কলেজ,দোহালিয়া প্রগতী উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ ও বাশতলা চৌধুরীপাড়া শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়সহ অন্যান্য বিদ্যালয়ে একই চিত্র চোখে পড়ে। শ্রেণি শিক্ষকের মাধ্যমে ভর্তি ও সেশন ফির ফি দেয়ার পরই মেলছে বই। অন্যরা বই নিতে বিদ্যালয় উপস্থিত হলেও সেশন ফি পরিশোধ না করায় বই না নিয়ে ফিরতে হয়েছে বাড়িতে।

বড়খাল স্কুল এন্ড কলেজে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি ফি ৮০০ টাকা, ৭ম ও ৮ম শ্রেণিতে সেশন ফি ১ হাজার টাকা, ৯ম ও ১০ম শ্রেণিতে ১হাজার ২শত টাকা নিয়ে শিক্ষার্থীদের বই দিচ্ছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

দোহালিয়া প্রগতী উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি ফি ৮শত ২০টাকা,৭ম শ্রেণীতে ৮শত টাকা,৮ম শ্রেণীতে ৮শত ১০টাকা,৯ম ও ১০ম শ্রেণীতে ৮শত ৪০ টাকা নিয়ে শিক্ষার্থীদের বই দিচ্ছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বাশতলা চৌধুরীপাড়া শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত ভর্তি সেশন ফি ১ হাজার টাকা নিয়ে শিক্ষার্থীদের বই দিচ্ছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, প্রতি বছরের শুরুতে কোনো রকম খাত না দেখিয়েই সেশন ফির নামের প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অনৈতিকভাবে আদায় করছে ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা। সরকারের নির্ধারিত নীতিমালা অমান্য করে গণহারে ফির নামে এভাবে অর্থ আদায়ের ঘটনা অভিভাবক মহলে চরম অসন্তোষ সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশি সরকারের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণ্য হচ্ছে।

দোয়ারাবাজার উপজেলায় ৩৫টি( বিদ্যালয় ২২ টি ও মাদ্রাসা ১৩ টি)মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।
অতিদরিদ্র অভিভাবকরা জানান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে সামান্যতম ছাড় না পাওয়ায় তারা নিরুপায় হয়ে অনেকেই গাছ, গবাদি পশু ও হাঁস-মুরগি বিক্রি করেই সেশন ফির অর্থদণ্ড দিয়ে সন্তান পড়াচ্ছেন। বিষয়টি অপেন সিক্রেট হওয়ার পরও উপজেলা শিক্ষা অফিস এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করছে না। অভিজ্ঞ মহলের মতে, বছরের শেষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোয় সরকারিভাবে গোপনে তদারকির ব্যবস্থা করা হলেই চলমান এ নিয়ম থেকে রেহাই পাওয়া যেতে পারে।

এ বিষয়ে দোয়ারাবাজার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মেহের উল্ল্যাহ জানান, বইয়ের সঙ্গে সেশন ফির কোনো সম্পর্ক নেই। সেশন ফি ছাড়াই প্রত্যেক শিক্ষার্থী বিনামূল্যে বই পাবে। সরকারের নীতিমালার বাইরে সেশন ফির নামে কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে