দুর্নীতিতে পূর্ণ দেশ ॥

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১১:২২ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০

—————————-
বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশের দুর্নীতির নতুন চিত্র :

Big business in Bangladesh selling fake Corona virus certificate (The Newark Times) বাংলাদেশ যেমন ক্রমাগত উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তেমনি তার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দুর্নীতি নামক কালো ছায়া। রাষ্ট্রের সকল সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো যেন মেতে আছে দুর্নীতির প্রতিযোগিতায়। বছর শেষ হওয়ার আগেই শেষ হয়ে যায় বরাদ্দকৃত বাজেট। দেশের সাধারণ মানুষ শুনতে পায় বাজেট প্রণয়নের ঢাকঢোল,স্বপ্ন দেখে দারিদ্রতার থেকে মুক্তি পাওয়ার কিন্তু প্রতিবছর তাদের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যায় কিছু দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষের কারণে যারা সাধারণ মানুষের জন্য বরাদ্ধকৃত টাকা দিয়ে তৈরি করেছে তাদের বিশাল বিশাল অট্টালিকা আর ভঙ্গ করছে রাষ্ট্রকে দেওয়া তাদের সততার প্রতিশ্রুতি। তারপরও ক্ষান্ত হয়নি সরকারি, বেসরকারি উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ ও সমাজের মানুষের জন্য কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া মানুষগুলো। দুর্নীতির মাধ্যমে তারা অনবরত দেশটাকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছে আর সরকারি সম্পদকে তারা লুটেপুটে খাচ্ছে। যাদের জন্য কাজ করছে সে সাধারণ মানুষগুলোকে হেনস্ত করছে প্রতিটি পদে পদে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশের দুর্নীতির প্রধান কারণ জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা অভাব। যার সব থেকে বড় প্রমাণ আমরা ২০২০ এ করোনা পরিস্থিতিতে পেয়েছি, যেখানে জেকেজি ও রিজেন্ট হাসপাতালকে অনুমোদন দেওয়া ও চুক্তি স্বাক্ষর নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পরস্পরকে দোষারোপ করছে । ২০২০ সালের এই মহামারিতে সাধারণ মানুষ বুঝতে পেরেছে বাংলাদেশের অন্যান্য খাতের মত স্বাস্থ্য খাতও দুর্নীতির প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে নেই। নিম্ন মানের মাস্ক ,পিপিই ও করোনা টেষ্ট রেজাল্ট জালিয়াতি ইত্যাদি দুর্নীতির হাজারো প্রমাণ ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সর্বত্র । কোভিড-১৯ এর ফলে পুরো পৃথিবী যেখানে স্তম্বিত এবং বাংলাদেশ সরকার যখন সাধারণ মানুষকে সাহায্য করার উদ্যোগ নেয় সেখানেও দুর্নীতির মহা উৎসব। যার ফলে ব্যর্থ হয় সরকারের সাজানো পরিকল্পনা। প্রতিবছর হাজারো সেমিনারে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আলোচনা হয় , দুর্নীতি দমন করতে সরকার নানা পলিসি গ্রহণ করে কিন্তু সকল প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয় । বরং দুর্নীতির শিকড় গ্রাস করছে সমাজের প্রতিটি স্তরেকে। সমাজ থেকে এই দুর্নীতির শিকড় একদিনে নির্মূল করা সম্ভব নয়। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ সরকার দুর্নীতি দমনের জন্য অনেক আইন প্রণয়ন করেছে । এই আইনগুলো প্রথমদিকে ভালোভাবে প্রয়োগ করা হলেও অধিকাংশ সময়ে অদৃশ্য শক্তির ইশারায় তা প্রয়োগ হয় না, তার মূল কারণ হচ্ছে শস্যের মধ্যে ভূত থাকা।

বর্তমান সমাজের মানুষ আশা করে, সৎ, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক তরুণ প্রজন্মের মাধ্যমে দুর্নীতি নির্মূল করা যাবে কিন্তু হতাশা নিয়ে বলতে হচ্ছে বর্তমান তরুণ প্রজন্ম দুর্নীতির নতুন রূপ ধারণ করেছে, যা সাধারণত সুস্থ রাজনীতির অভাবের ফল। বর্তমান তরুণ প্রজন্মকে দেশের বড় বড় রাজনীতিবিদরা তাদের দাবার গুটির মত চালাচ্ছে এবং ছড়িয়ে দিচ্ছে তাদের দুর্নীতির ভাইরাস ছাত্র সমাজের মধ্যে। দুর্নীতি করাল গ্রাস থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত করতে হলে সরকার ও জণগণকে একত্রে কাজ করতে হবে। সরকারের সর্বস্তরে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের আইন প্রয়োগে যথাযথ সাহায্য করতে হবে। সন্তানদের সততা, আদর্শ ও নৈতিকতা শিক্ষা দেওয়ার মাধ্যমে দুর্নীতি দূরীকরণে পরিবার অনেক বড় ভূমিকা পালন করতে পারে। তাহলেই বাংলাদেশ একদিন বিশ্বদরবারে দুর্নীতিমুক্ত দেশ হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে।

লেখক :
ফাইমা আক্তার
শিক্ষার্থী ,তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার বিভাগ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় :