ঢাকা২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে হাওর রক্ষা বাঁধের বেহাল দশা

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন

জানুয়ারি ৩০, ২০২১ ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ
হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ শুরু করার কথা আজ থেকে দেড়মাস আগে কিন্তু দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাওরের বাঁধ পরিদর্শণ করে বেহাল দশা পরিলক্ষিত হয়েছে। উপজেলার পূর্ব রীরগাঁও ও দরগাপাশা ইউনিয়নের বিভিন্ন হাওর ঘুরে দেখা যায় এখনো কোন বাঁধের কাজ শুরু হয়নি। এ নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্য পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেবুন নাহার শাম্মী বলেন, যারা এখনো কাজ শুরু করেনি তাদের পিআইসি বাতিল করা হবে। পিআইসির লোকজন বলছেন, ওয়ার্ক অর্ডার না পাওয়ায় কাজ শুরু করা যাচ্ছেনা। দরগাপাশা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মনির উদ্দিন বলেন, শনিবার থেকে কাজ শুরু করা হবে।

শুক্রবার হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটি ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা কমিটির উদ্যোগে হাওরের বাঁধ পরিদর্শন করতে গিয়ে হাওরের কোথায় বাঁধ হচ্ছে তা খোঁজে পাওয়া যায়নি। এবারও কলমে মাটি কাটবে কি না সন্দেহ করছেন হাওর নেতারা।

দুপুরে হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিজন সেন রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক একে কুদরত পাশা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা কমিটির সভাপতি মোঃ জালাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু সঈদ, সহ সভাপতি সাজ্জাদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইমাম হোসেন চৌধুরী মাহফুজ, বাঁধ বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ নজরুল ইসলাম, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আব্দুল ইসলাম মিলন, নির্বাহী সদস্য মাওলানা মিজানুর রহমান তালুকদার, সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, সৈয়দ আসাদুজ্জামান আসাদ সহ প্রমুখ।
পরিদর্শনে খাই হাওর উপ-প্রকল্পের কি:মি: ৬.৮৬৬ হতে কি:মি: ৮.৮৭৬ ডুবন্ত বাঁধের ভাঙ্গা বন্ধকরণ ও মেরামত কাজের পিআইসি নং ২৫ এ গিয়ে দেখা যায় বাঁধে কাজ শুরু হয়নি। এ প্রকল্পের সভাপতি হচ্ছেন, জুনেদ আহমদ ও সেক্রেটারী মুজিবুর রহমান। এ প্রকল্পে বরাদ্ধ ধরা হয়েছে ১৭ লক্ষ ৯৬ হাজার টাকা।
একই হাওরের পিআইসি নং ২৬ এ গিয়ে দেখা যায় বাঁধে কাজ শুরু হয়নি। এ প্রকল্পের সভাপতি হচ্ছেন, ফজলুর রহমান ও সেক্রেটারী সজিব নূর। এ প্রকল্পে বরাদ্ধ ধরা হয়েছে ২১ লক্ষ ১হাজার টাকা এ বাধেও কাজ শুরু হয়নি।

দরগা পাশা ইউনিয়নের কাঁচিভাঙ্গা হাওর কিঃ মিঃ ০.১৫০ হতে ২.৯৬৭ কিঃমিঃ বাঁধের পিআইসি নং ০৬ এ গিয়ে দেখা যায় বাঁধে কাজ শুরু হয়নি তবে দুর্বাঘাস পরিস্কার করা হয়েছে ১০ গজ জায়গায়। এ প্রকল্পের সভাপতি হচ্ছেন, আবু খালেদ চৌধুরী ও সেক্রেটারী মিসবাহ উদ্দিন। এ প্রকল্পে বরাদ্ধ ধরা হয়েছে ১৪ লক্ষ ৭২ হাজার টাকা, জামখলার হাওর পিআইসি নং নং ০২ এর সভাপতি আফরোজ মিয়া, সেক্রেটারী রাহেল চৌধুরী, বাঁধের বরাদ্দ ১৬ লক্ষ ১৩ হাজার, পিআইসি নং ৩, সভাপতি জগলু, সেক্রেটারী বাচ্চু মিয়া, এ প্রকল্পে বরাদ্দ ১৯ লক্ষ ৪০ হাজার, কাঁচিভাঙ্গা হাওরের পিআইসি নং ০৭, সভাপতি বদরুল সেক্রেটারী জবর আলী, এ প্রকল্পে বরাদ্দ ৭.৩৩ হাজার, খাইর হাওর পিআইসি নং ২৭, সভাপতি ফয়জুল হোসেন সেলাল, সেক্রেটারী ইয়াওর মিয়া চৌধুরী এ প্রকল্পে বরাদ্দ ১২ লক্ষ ৬৯ হাজার, পিআইসি নং ২৮, সভাপতি মঈনুল ইসলাম সেক্রেটারী হারুন মিয়া এ প্রকল্পে বরাদ্দ ৯ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা।
প্রকল্পগুলো পরিদর্শন করে কোথাও কাজ শুরু হয়েছে এমন দেখা যায়নি। বিশেষ করে খাই হাওরের কোনাডুবি ও চাতলি ভাঙ্গাগুলো বিপদজনক অবস্থায় রয়েছে। কৃষকরা জানিয়েছেন এ ভাঙ্গাগুলো বন্ধ না হলে ফাল্গুন মাসে নদীতে পানি একটু বৃদ্ধি পেলেই হাওরের প্রবেশ করবে।
জামখলা হাওরের বাঁধ কাম রাস্তা ছয়হারা সলফ অংশ নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে। এদিকেও বিপদজনক অবস্থায় রয়েছে জামখলা হাওর। কাঁচিভাঙ্গা হাওরের ৬ নং পিআিইসিতে গিয়ে দেখো যায় ১০ গজ জায়গায় দুর্বাঘাস পরিস্কার করা হয়েছে। এসময় কৃষকরা প্রতিনিধি দলের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ কমিটির সদস্য ওবায়দুল হক জানান, আমরা এখনও ওয়ার্ক অর্ডার পাইনি কিভাবে কাজ শুরু করবো এরপর ও আমরা দুর্বাঘাস পরিস্কারের কাজ শুরু করেছি।
খাই হাওরের কোনাডুবি ভাঙ্গা থেকে হাওর বাঁচাও আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিজন সেন রায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেবুন নাহার শাম্মীকে ফোন দিলে তিনি জানান, আমরা গত কালের সভায় সিদ্ধান্ত নিয়েছি যারা কাজ শুরু করবে না সেসব পিআইসিকে বাতিল করে নতুন পিআইসি করা হবে।

দরগাপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনির উদ্দিন জানান, এখনো আমার ইউনিয়নের কোন বাঁধে কাজ শুরু হয়নি, আশা করি শনিবার থেকে কাজ শুরু হবে।

সম্পর্কিত পোস্ট