জুবায়েদ মোস্তফার কবিতা-অসহায় পথ শিশু

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২০

—————————
পথেই হয়েছে জন্ম তাদের, পথেই করে বসবাস
বিদিত নহে কোথায় তাদের পূর্বপুরুষ, কোথায় আদি নিবাস
আমি তোমার বড্ড আপন, পাশেই আছি সবসময়
কখনো এমন মধুর বাণীতে কেউ দেয় না তাদের আশ্বাস।

এতো বিশাল ধরণীর বুকেও পায় না তারা সুরক্ষা
চোখ বুজে নিত্যদিন সহ্য করতে হয় সকল অবজ্ঞা।
দুটি পা ফেলার জায়গাটুকু নাই, থাকার জন্য নাই গৃহ
আপন মানুষ থাকা সত্ত্বেও আপন করে কাছে টেনে নেয় না কেহ।

সারাটি জনম কেটে যায়,রয়ে যায় একা একা
জীবন ব্যপি কোন ক্ষণেই পায় না সুখের দেখা।
ফুটপাত তাদের শেষ আশ্রয়স্থল, নেইকো তাদের বাড়ি
জীবন অতিক্রম হয় অতি সংগ্রামে,কষ্ট পায় ভুরি ভুরি।

জীবন যুদ্ধে টিকে থাকতে রীতিমত করে তারা সংগ্রাম
তারাও বিধাতার সৃষ্টি,রক্তে মাংসে গড়া মানুষ
তবু কেন এ দুনিয়ায় পাবে না তারা একটু খানি ন্যূনতম দাম।
পথ শিশু হয়ে জন্ম নিয়েছে বলে সে কি তাদের অন্যায়?
তাদের প্রতি এমন বিরূপ আচরণে কে নিবে তার দায়?

এখানে বড় বড় ধনী,সেখানে আছে বিশাল শিল্পপতি
কোথাও তো থাকার মতো পেল না তারা ঠাঁই
মা বাবা জীবিত থাকা সত্ত্বেও তারা আজ মস্তবড় অসহায়।
তাদের দিকে করুণার দৃষ্টিতে, ফিরেও তাকায় না আত্মীয়স্বজন
কারো নিকট যাওয়ার কোন উপায় নেয়,পায় না সঠিক মূল্যায়ন।

মানুষে হিসাবে সবার মতো তাদেরও আছে বাঁচার অধিকার
বহু অন্বেষণেও কোন ভাবে জুটে না দু মুঠো আহার।
লজ্জা কাটিয়ে মানুষের কাছে রাস্তার ধারে চায় ভিক্ষা বার বার
মনের সুখে নিজ পথে আপন গতিতে হেঁটেই চলে
এতো করো চাওয়ার পর ভুলেও ফিরে তাকাই না কেউ একবার।

পেটের জঠর জ্বলায় সহ্য করতে না পেরে, করে তারা
কাগজ কুড়ানো,ফুল বিক্রি কিংবা নানান দুঃসাধ্য কাজ।
এতো কাজের ব্যস্ততায় ঘনিয়ে আসে সাঁঝ।
অতি কষ্টে কেটে যায় তাদের সারাটি দিন
বেলা শেষে ফিরে তারা হয়ে মলিন।
———————-
লেখকঃ জুবায়েদ মোস্তফা
শিক্ষার্থী, লোকপ্রশাসন বিভাগ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়