জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট স্বামীর বিরুদ্ধে যবিপ্রবি শিক্ষিকার মামলা

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ৭:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২০

নিলয় ধর,স্টাফ রিপোর্টার(যশোর):

যৌতুকের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষিকা স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে যশোর আদালতে নীলফামারীর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। সোমবার ১৪ সেপ্টেম্বর যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের আড়পাড়া এলাকার ইকরামুল হকের মেয়ে ফারজানা নাসরিন মামলা করেছেন।
যশোরের জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সাইফুদ্দিন হোসাইন অভিযোগটি আমলে নিয়ে সমন জারির আদেশ দিয়েছে।

আসামি মাসুদ রানা পাবনা সাঁথিয়া উপজেলার আফতাবনগর গ্রামের আব্দুল আলিমের ছেলে।
বাদী ফারজানা নাসরিন এজাহারে উল্লেখ করেন, আসামি মাসুদ রানা পরসম্পদ ও যৌতুকলোভী। ২০১৯ সালের ২১ জুন তিনি শামসি নাহিদ অঞ্চা নামে এক মেয়েকে বিয়ে করেন। পরে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন করে ওই বছরের ৪ নভেম্বর তালাক দেন। মাসুদ রানার সঙ্গে ফারজানা নাসরিনের মোবাইল ফোনে পরিচয়। আগের বিয়ে গোপন করে পারিবারিকভাবে চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি বিয়ে হয়েছে। বিয়ের সময় মাসুদ রানাকে পাঁচ লাখ টাকার মালামাল ও দুই লাখ টাকার সোনার গয়না দেওয়া হয়েছে।

কিছুদিন যেতে না যেতে মাসুদ রানা ঢাকার পূর্বাচলে প্লট কেনার জন্য স্ত্রীর কাছে দশ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। এর মধ্যে পাঁচ লাখ টাকা মাসুদ রানাকে দেওয়া হয়। বাকি পাঁচ লাখ টাকার জন্য মাসুদ রানা স্ত্রীর ওপর নির্যাতন শুরু করেন। এক মাস আগে মাসুদ রানা শ্বশুরবাড়ি এসে যৌতুকের টাকা না পেয়ে স্ত্রীকে মারপিট করে চলে যান। এরপর বেশ কয়েকবার মীমাংসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হওয়ায় তিনি আদালতে এই মামলা করেন।

রাতে এই বিষয়ে আরো জানার জন্য ফারজানা নাসরিনের নাম্বারে ফোন করা হয়। কিন্তু সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।
যবিপ্রবি উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আনোয়ার হোসেনও ফোন রিসিভ করেননি।
অভিযুক্ত জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানার নাম্বার সংগ্রহ করা যায়নি।