ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় ভোলায় নেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি।

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ৪:৪৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৮, ২০১৯

মো. সাইফুল ইসলাম(ভোলা প্রতিনিধি):

-বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় দ্বীপ জেলা হচ্ছে ভোলা।৩৪০৩.৮৬ বর্গ কি.মি আয়তনের এই জেলাটির তিন দিক থেকে ঘিরে রয়েছে নদী আর দক্ষিন দিকে রয়েছে বঙ্গোপসাগর।দক্ষিনাঞ্চলের জেলা ও বঙ্গোপসাগরের নিকটবর্তী বলে এখানে ঘূর্ণীঝড় বুলবুল এর প্রভাব রয়েছে ফলে এখানে ও ৪ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় মানুষর্কে সতর্ক করতে চলছে প্রচারণা।ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় ভোলায় সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন। ঝড় মোকাবিলায় জেলার ৬৪৮টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে। গঠন করা হয়েছ ৯২টি মেডিক্যাল টিম। এছাড়াও জেলা সদরসহ সাত উপজেলায় ৮টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। মানুষর্কে সতর্ক করতে উপকূলে চলছে প্রচারণা।

শুক্রবার (০৮ নভেম্বর) সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে ঘূর্ণিঝড়ের বিষয়ে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাসুদ আলম ছিদ্দিক জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ১৩ হাজার স্বেচ্চাসেবী। খুলে দেওয়া হয়েছে জেলার সব আশ্রয়কেন্দ্র। এছাড়াও মজুদ রাখা হয়েছে ত্রাণ।
ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) ভোলার উপ-পরিচালক সাহাবুদ্দিন জানান, ঝড়ের বিষয়ে মানুষকে জানাতে সিপিপি ও রেডক্রিসেন্ট কর্মীরা প্রচার-প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। সিপিপির ১০ হাজার ২শ’ স্বেচ্চাসেবী প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ভোলায় এখনো ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত চলছে। ঝড়টির গতিবেগ এমন, যে এটি কোন দিকে আঘাত হানবে এখনো তা এ মুহূর্তে ঠিক বলা যাচ্ছে না।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সকাল থেকে জেলায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। কোথাও কোথাও আবার ভারী বর্ষণ হয়েছে। পুরো জেলা মেঘাচ্ছন্ন। নদী এবং সাগর উত্তাল হয়ে উঠেছে। অনেক জেলে তীরে চলে এসেছেন।