গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে তালার আওয়ামী লীগ নেতা আটক

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১:২৫ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৯

শেখ রিপন সাতক্ষীরা সংবাদদাতা ঃ

সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় গৃহবধূকে ফাঁদে ফেলে ধর্ষণের অভিযোগে কামাল সানা নামে ওয়ার্ড পর্যায়ের এক আওয়ামী লীগ নেতাকে আটক করেছে পুলিশ।

কামাল সানা তালা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও দোহার গ্রামের ফাজেল সানার ছেলে।

কামাল সানা (৩৫) নামে এক আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক গৃহবধূকে ঝাপটে ধরে ছবি তুলে ইন্টারনেটে ও তার স্বামীর কাছে পৌছে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশ শুক্রবার রাতে তাকে আটক করেছে। কামাল সানা উপজেলার

তালা থানায় দায়ের করা গৃহবধূর অভিযোগ থেকে জানা গেছে, উপজেলার জেঠুয়া গ্রামের দুই সন্তানের জননী (২৫) ওই গৃহবধূর স্বামী কাজের সুবাদে বেশ কিছুদিন ধরেই যশোরে অবস্থান করছিল। কামাল সানা তার স্বামীর দূঃসর্ম্পকের আত্মীয়। এই সুত্র ধরে কামাল প্রায়ই তাদের বাড়িতে যাতায়াত করত। এক পর্যায়ে আকস্মিক তাকে একদিন কুপ্রস্তাব দেয়। রাজী না হওয়ায় গত ৫ অক্টোবর কৌশলে তাকে বাড়ির পাশের নদীর ধারে ডেকে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই সেখানে তাকে ঝাপটে ধরে কামাল। এসময় তার সাথের অজ্ঞাত ব্যাক্তির সহায়তায় তাৎক্ষণিক একাধিক আপত্তিকর ছবি তোলে। এরপর কামাল তাকে ওই ছবি দেখিয়ে ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখায়। এমনকি তার স্বামীর কাছে পৌঁছে দিয়ে তার সংসার ভাঙার হুমকি দেয়। ওই দিন কোন রকম নিজেকে রক্ষা করে বাড়ি ফিরে আসতে সক্ষম হন গৃহবধূ।

সুচতুর কামাল এরপরও তার পিছু ছাড়েনি। যার ধারাবাহিকতায় গত ১৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় ফের ওই নারীর বাড়িতে প্রবেশ করে উক্ত অশ্লীল ছবি দেখিয়ে ও নানাবিধ হুমকি দিয়ে জিম্মি করে তাকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি কাউকে বললে তার স্বামী-সন্তানের ক্ষতিরও হুমকি দিয়ে যায়। ঘটনার শিকার গৃহবধূ নিরুপায় হয়ে বিষয়টি কাউকে জানায়নি। তারপরও কামাল গত বুধবার তার কাছে থাকা অশ্লীল ছবিগুলো তার স্বামীর কাছে পৌঁছে দেয় ।

সর্বশেষ ঘটনায় তাদের সংসার ভেঙে যেতে বসেছে, জানান ওই গৃহবধূ। এক পর্যায়ে অতিষ্ঠ গৃহবধূ তার স্বামীসহ আত্মীয়-স্বজনদের সাথে পরামর্শ করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘটনা জানিয়ে তালা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ কামালকে আটক করে।

এদিকে কামালের সহযোগীরা অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য নানাবিধ হুমকি দিচ্ছে। ধর্ষণের শিকার গৃহবধূর অভিযোগ করার পর থেকে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।

তবে অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা কামাল সানা জানান, একটি কুচক্রী মহল তার মান-সম্মান নষ্ট করতে ওই নারীকে ব্যবহার করছে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। তার কাছ থেকে অবৈধ সুবিধা নিতে সম্মিলিতভাবে মহলটি অপপ্রচার ও থানায় অভিযোগ করে তাকে হয়রানি করছে।

তালা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম মুক্তি জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ হলে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।

বিষয়টি নিয়ে তালা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মেহেদী হাসান রাসেল জানান, কামাল সানাকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।