ঢাকাশুক্রবার , ৮ ডিসেম্বর ২০২৩
  1. সর্বশেষ

মৌলিক গবেষণায় পিছিয়ে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়

প্রতিবেদক
নিউজ ডেস্ক
১৮ নভেম্বর ২০২৩, ১:৫০ পূর্বাহ্ণ

Link Copied!

-তাওহিদুল ইসলাম শিশির,বুটেক্স প্রতিনিধি :

মৌলিক গবেষণায় পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় (বুটেক্স)। চাকরির সহজলভ্যতা, উচ্চশিক্ষার প্রতি অনীহা, ল্যাবে পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার অভাব, শিক্ষক সংকটসহ নানা কারণে শিক্ষার্থীরা গবেষণায় পিছিয়ে আছে।

ওয়েব ম্যাট্রিক্স র‍্যাংকিংয়ের ২০২৩ সালের জুন মাসের জরিপ অনুযায়ী বিশ্বের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বুটেক্সের অবস্থান ১৩ হাজার ৭৩৫তম। আর দেশে পাবলিক ও বেসরকারি মোট ১৭০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে অবস্থান ৮৭তম। এতে প্রথম এবং দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। তাছাড়া এডু র‍্যাঙ্ক প্রতিষ্ঠানের হিসেব অনুযায়ী বুটেক্সের মোট গবেষণাপত্র পাবলিশ করেছে ৬০১টি। যা দেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর তুলনায় অনেক কম।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাইজ অ্যান্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ৪৩তম ব্যাচের শিক্ষার্থী সোহাগ চন্দ্র দাস বলেন, গবেষণায় তুলনামূলকভাবে পিছিয়ে থাকার প্রধান কারণ হলো আমরা মৌলিক গবেষণায় পিছিয়ে। এতে অধিক ফান্ড ও বেশি সময় প্রয়োজন হয়। আমাদের ফান্ডের পরিমাণও খুব কম যেটা গবেষণায় পিছিয়ে থাকার অন্যতম কারণ। ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোলাবোরেশানে না আগ্রহ দেখিয়ে শুধু সরকারি ফান্ডের আশায় থাকাটাও আমাদের পিছিয়ে রেখেছে।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষকদের অধিক বন্ধসুলভ হওয়া দরকার। শিক্ষকদের ক্লাসের বাহিরে ল্যাবে সময় দিতে হবে। বাংলাদেশের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়েই শিক্ষকরা রাত পর্যন্ত ল্যাবে থাকে এবং নিজেরা এক্সপেরিমেন্ট করে। তবে শিক্ষার্থীদেরও উচিত শিক্ষকদের সাথে আলোচনা করার আগে যথাযথ স্টাডি ও পরিকল্পনা করে নেওয়া। এতে সময় নষ্ট হয় না, কর্মদক্ষতা বাড়ে।

৪৪তম ব্যাচের ওয়েট প্রসেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী ফয়সাল আহমাদ বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় এখনো পুরোপুরি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈশিষ্ট্য অর্জন করতে পারেনি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় ইন্ডাস্ট্রির সাথে গভীর সম্পর্ক করতে না পারার কারণে শিক্ষার্থীরা সহজে রিসার্চের কাজ করতে পারছে না। এখানে যারা গবেষণার কাজ করছে সেসব শিক্ষার্থীরা তাদের নিজ উদ্যোগে এবং নিজ চেষ্টায় গবেষণা করছে। এখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান খুবই কম বলা যায়। থিউরিটিক্যাল নলেজ অর্জন করার সুযোগ থাকার পাশাপাশি এর প্র্যাকটিক্যাল প্রয়োগ করার সুযোগ থাকতে হবে।

গবেষণায় পিছিয়ে থাকার প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ সাইদুজ্জামানকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, বুটেক্স গবেষণায় পিছিয়ে আছে কথাটি সঠিক নয়। তবে আমাদের যে ফিজিক্যাল ফেসিলিটিস বা ইনফ্রাস্ট্রাকচার আছে তার পরিপ্রেক্ষিতে যে সংখ্যায় বা যে মানের রিসার্চ হওয়া প্রয়োজন তা হচ্ছে না। এর অন্যতম প্রধান কারণ শিক্ষক সংকট। বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল কাজ নলেজ ক্রিয়েশন এবং ডিস্ট্রিবিউশন। অর্থাৎ গবেষণা থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া। বুটেক্সে ছাত্র-শিক্ষক অনুপাত অনেক বেশি হওয়ায় একজন শিক্ষক ক্লাস নিচ্ছেন সপ্তাহে ৩০ থেকে ৪২ ঘন্টা। শিক্ষক প্রতিদিন ৬ ঘন্টা ক্লাসেই ব্যয় করেন। ফলে ক্লাস লেকচারও তৈরি করার সময় তিনি পান না। ফলে শিক্ষার্থীদের পুরোনো ক্লাস নোটই পড়ানো হচ্ছে। ফলের সময়োপযোগী জ্ঞান শিক্ষার্থীরা পাচ্ছে না।  পাশাপাশি একজন মানুষ হিসাবে শিক্ষকদের যে শারীরিক বা মানসিক বিশ্রাম প্রয়োজন তা তারা পাচ্ছেন না। এগুলো রিসার্চের জন্য পুরোপুরি অন্তরায়।
তিনি বলেন, এখানে যথেষ্ট মেধাবী শিক্ষার্থীরা ভর্তি হয়। কিন্তু শিক্ষকরা ব্যস্ততার কারণে তাদের সময় দিতে না পারায় শিক্ষার্থীরা তাদের যোগ্যতা প্রমাণ করতে পারছে না।

রিসার্চের জন্য যে পরিমাণ ফান্ড প্রয়োজন শিক্ষার্থীরা তা কেন পাচ্ছে না এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান বাজেট অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের রিসার্চের জন্য ফান্ড দেয়ার ব্যবস্থা নেই। তবে শিক্ষকরা চাইলে প্রজেক্ট নিতে পারেন এবং প্রয়োজনীয় সংখ্যক শিক্ষার্থীদের রিসার্চ অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে নিযুক্ত করতে পারেন। যা বর্তমানে তা করাও হচ্ছে। পাশাপাশি বিএসসি পর্যায়ে যে প্রজেক্টগুলো করা হয় সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের কিছু অর্থ প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।

বুটেক্সের অবকাঠামো বা গবেষণাগারের সীমাবদ্ধতা রিসার্চের জন্য কতটা অন্তরায় এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি রিসার্চের জন্য অনেক বড় বাধা। কেননা বুটেক্স যখন কলেজ ছিল তখন যেমন অবকাঠামো ছিল এখনো তেমনি আছে, কেবল ভার্সিটি হওয়ার পরে নতুন বিল্ডিং হয়েছে। ল্যাবের কাঠামো পুরোপুরি কলেজের মতই রয়েছে। তবে নতুন বিল্ডিং করার এবং বুটেক্সের পরিসর বড় করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। যদিও তা দীর্ঘমেয়াদী ব্যাপার, তবে এই পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন হলে সমস্যাগুলো আর থাকবে না।

রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক  ড. আবু মোহাম্মদ আজমল মোর্শেদ বলেন, শিক্ষার্থীদের গবেষণার প্রতি অনাগ্রহের দায়ভার শিক্ষকদের ওপরেই বেশি আসে। কারণবশত: আমরা অধিকাংশ শিক্ষকই অধিক গবেষণাকাজের সাথে জড়িত নই। এর কারণ অন্যান্য দেশের মতো আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা গবেষণাধর্মী নয়। পাশাপাশি অন্যান্য দেশে প্রতিটি শিক্ষককে গবেষণার বাধ্যবাধকতা থাকে। প্রজেক্টের কাজে সফলতা তাকে পরবর্তীতে প্রজেক্ট পাওয়ায় সহায়তা করে। আমাদের দেশে শিক্ষকরা কেবল তাঁদের অবস্থার উন্নয়নের জন্য যে সংখ্যক  গবেষণাপত্র প্রয়োজন সেগুলোই পূরণ করে।

তিনি বলেন, বুটেক্সে  আধুনিক সুবিধাসম্পন্ন গবেষণাগারের ঘাটতির পাশাপাশি যেসব পরীক্ষাগার আছে সেগুলোতে গবেষণারর জন্য প্রয়োজনীয় আধুনিক যন্ত্রপাতি অনেক কম। আবার যা  আছে সেগুলোর বেশকিছু পুরোনো বা অচল, তাই কোন গবেষণা করতে গিয়ে সীমাহীন প্রতিকূলতার সম্মুখীন হওয়ার কারণে গবেষক অনুপ্রেরণা হারিয়ে সে পথটাই ছেড়ে দেয় নিজের অজান্তেই।

তিনি আরও বলেন, বুটেক্সে গবেষণামূলক সেমিনার অনেক কম হয়। যা হয় তাতে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ অনেক কম। তাছাড়া সবচেয়ে দুঃখের বিষয় এদেশে গবেষণাপত্র প্রকাশেরও কোনো খ্যাতিমান জার্নাল নেই। আর না আছে ভালো কোনো প্রকাশক সংস্থা, যার জন্য গবেষকগণের গবেষণা প্রকাশে বিরাট সমস্যায় পরতে হয়। শতভাগেরই প্রায় বিদেশি প্রকাশনার উপর নির্ভরশীল হতে হয় যা বেশিরভাগ সময়ই ব্যয়বহুল।
গবেষণার উপযোগী উপাত্ত এদেশে অপ্রতুল, যা পাওয়া যায় সেগুলোও মানসম্পন্ন নয়। আবার অনেক গবেষক প্রয়োজনীয় ফান্ডিংয়ের অভাবেও গবেষণাবিমুখ হয়ে পরেন।

সর্বোপরি তিনি বলেন,  বুটেক্সে  উচ্চশিক্ষায় গবেষণার বাধ্যবাধকতা সেই সাথে গবেষণার প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধার নিশ্চায়নই পারে বুটেক্সকে গবেষণায় এগিয়ে নিয়ে যেতে।

38 Views

আরও পড়ুন

সভাপতি জাহিদ,সাধারণ সম্পাদক বুলু
হাকিমপুর প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন

মোমবাতির কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, মৃত্যু ৬

মহেশখালী পৌরসভার মোহাম্মদ জাবেদ সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত, এলাকা জুড়ে শোকের ছায়া

চকরিয়ায় পারভেজ বাবু হত্যা মামলার আসামি ইউছুপ বগুড়ায় গ্রেফতার

চকরিয়ায় বিদ্যুৎ তারের সংস্পর্শে মহিলার মৃত্যু

চকরিয়ার নবাগত ইউএনও মোঃ ফখরুল ইসলাম

ই-কমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ও ওস্তাদজী’র সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

খেলতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

১৯৭১ এর এই দিনে শত্রুমুক্ত হয়েছিলো নোয়াখালী

রামুতে বন্যহাতির আক্রমণে আহত ২ : আতঙ্কে আছে পুরো এলাকাবাসী।

নোয়াখালীতে তেল কম দেওয়ায় ফিলিং স্টেশন সিলগালা

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে নবাগত ইউএনও’র যোগদান