ঢাকা২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কার্টুন দেখতে মোবাইল চাওয়ায় মেয়েকে গলা টিপে হত্যা

প্রতিবেদক
নিউজ ভিশন

ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২১ ৯:০৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রংপুর ব্যুরো:

কার্টুন দেখতে বার বার মোবাইল চাওয়ায় ৮ বছরের মেয়ে নুপুরকে গলা টিপে হত্যা করেন বাবা। ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে মেয়ের লেহেঙ্গার ওড়না দিয়ে মরদেহ ফাঁস লাগিয়ে ঝুলিয়ে দেন তিনি। ১০ মাস আগে নীলফামারীর সৈয়দপুরে ঘটেছে এ ঘটনা। ওই বাবার নাম নুর মোহাম্মদ।

দীর্ঘদিন পর এ ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে মাত্র ১১ দিনের মধ্যে ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেন রংপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর টিম। বাবা নুর মোহাম্মদকে গ্রেপ্তারের পর ঘটনার দায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবাববন্দিও দিয়েছেন তিনি। শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) রংপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

পিবিআই জানায়, নীলফামারীর সৈয়দপুরের রসুলপুর রেল কোয়ার্টারে ৫/৬ বছর থেকে পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন নুর মোহাম্মদ। ২০২০ সালের ৩ এপ্রিল শুক্রবার জুম্মার নামাজ শেষে স্ত্রী এবং দুই সন্তান নুপুর (৮) ও আবু সোহানসহ (৭) বাড়িতে টিভি দেখছিলেন নুর মোহাম্মদ।

এক পর্যায়ে বড় মেয়ে নুপুর কার্টুন দেখতে বাবার মোবাইলটি বারবার চাইলে না দেওয়ায় বাবাকে গালি দেয় সে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মেয়ের গলা চেপে ধরে নুর মোহাম্মদ। এক পর্যায়ে নুপুর মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ে।

ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার জন্য নুপুরের লেহেঙ্গার ওড়না দিয়ে কাপড় শুকানোর রশিতে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখেন তিনি।

এ ঘটনায় ওইদিন সৈয়দপুর থানা পুলিশ অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে ও লাশেরময়না তদন্ত করা হয়। ঘটনাটি তদন্তের জন্য দেয়া হয় রংপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই)।

পিবিআইয়ের তদন্ত কর্মকর্তা নুরে আলম সিদ্দিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করেন। এরপর জিজ্ঞাসাবাদের জন আটক করা হয় নুর মোহাম্মদকে। এক পর্যায়ে তিনি মেয়ে নুপুরকে হত্যার ঘটনা স্বীকার করে।

এরপর তাকে নীলফামারীর সৈয়দপুর আমলি আদালত-২ এর বিজ্ঞ সিনিয়র ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদি হাসানের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। আটক নুর মোহাম্মদ এখন নীলফামারী জেলা কারাগারে।

সম্পর্কিত পোস্ট