কাউন্সিলর রেজাউল করিমের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় পৌরসভায় সাংবাদিক সম্মেলন

নিউজ নিউজ

ভিশন ৭১

প্রকাশিত: ১০:৫৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২০

 

সাঈদী আকবর ফয়সাল, চকরিয়াঃ
কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর রেজাউল করিমের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে সন্ধ্যা ৬ টায় ১৭জুলাই চকরিয়া পৌরসভা ভবনে সাংবাদিক সম্মেলন করেন প্যানেল মেয়র মোঃ বশিরুল আইয়ুবের নেতৃত্বে পৌর কাউন্সিলরগণ।


চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিমের উপর ন্যাক্কারজনক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে প্রেসব্রিফিংয়ে লিখিত বক্তব্যে প্যানেল মেয়র মোহাম্মদ বশিরুল আইয়ুব বলেন- গত ২১ জুন চকরিয়া উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির মিটিংয়ে কক্সবাজার-১ আসনের মাননীয় সংসদ আলহাজ্ব জাফর আলম বিএ( অনার্স)এমএ এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ফজলুল করিম সাঈদী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ শামসুল তাবরিজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আলমগীর চৌধুরী, চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হাবিবুর রহমান এর উপস্থিতিতে কাউন্সিলর রেজাউল করিম স্থানীয় ২ নং ওয়ার্ডের মৌলভীরচর এলাকার বাদশা মিয়া (প্রকাশ ট্যাগ বাদশার) পুত্র সন্ত্রাসী কপিল উদ্দিন গ্যাংদের অপকর্মের চিত্র তুলে ধরে বক্তব্য দেন এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করেন । এই বক্তব্য দেওয়ার জেরে, কাউন্সিলর রেজাউল করিমকে হত্যার হুমকি দমকি দিয়ে আসছিল। বিষয়টি চকরিয়া থানার ওসি মোঃ হাবিবুর রহমান কে রেজাউল করিম নিজে ফোন করে জানানোর পরেও কোন ব্যাবস্থা নেওয়া হয়নি বলেই, আজকের এই সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে, বলে জানান প্যানেল মেয়র বশিরুল আইয়ুব। তিনি আরও বলেন, এই ধরনের সন্ত্রাসী হামলার আশংকা প্রকাশ করে আমাদের চকরিয়া পেকুয়া আসনের মাননীয় সাংসদ আলহাজ্ব জাফর আলম এমপি মহোদয় আমাদের (কাউন্সিলরদের) সামনে ওসি হাবিবুর রহমান সাহেব কে এই সন্ত্রাসী কপিল উদ্দিন সহ অপরাপর সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতারের নির্দেশ দেন । তাসত্বেও তাদেরকে ঐ সময় গ্রেফতার করা হয়নি।ওই সময় গ্রেপ্তার করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিলে আজকের এই ঘটনা ঘটতোনা।

বর্তমানে চকরিয়ার আইন শৃংখলার অবনতি চরম পর্যায়ে পৌছেছে বলে আশংকা প্রকাশ করে বলেন – যদি একজন পৌর কাউন্সিলর এলাকার উন্নয়ন কাজ করতে গিয়ে এভাবে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয় তাহলে, আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন মুলক কাজ কিভাবে বাস্তবায়ন করবো? এই প্রশ্ন রেখে
তিনি কাউন্সিলর রেজাউল করিমের উপর বর্বোরোচিত হামলার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করে অনতিবিলম্বে এই সন্ত্রাসী সহ সকল ধরনের সন্ত্রাসীদের কঠোর ভাবে দমন করার জন্যে প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে অনুরোধ জানান।
এসময় পৌরসভার কাউন্সিলর আলহাজ্ব মছুদুল হক মধু, জিয়াবুল হক, ফোরকানুল হক তিতু, জাফর আলম কালু, জামাল উদ্দিন, মুজিবুল হক, নজরুল ইসলাম, রাজিয়া সোলতানা খুকুমণি ও আন্জুমন আরা সহ পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারী সার্ভিস এসোসিয়েশনের পক্ষে জাহেদ উদ্দিন, রাজিব চৌধুরী, আরিফুল মোস্তফা, ওসমান গনি প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, আজ শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে চকরিয়া পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোঃ রেজাউল করিম তার ভাতিজা সহ মসজিদ থেকে বাড়িতে আসার পথে, পথরোধ করে স্থানীয় সন্ত্রাসী কফিলউদ্দিন ও তার ভাই সহ ৪/৫ সন্ত্রাসীর দা-কিরিছ নিয়ে তাদের ওপর হামলা করলে কাউন্সিলর রেজাউল করিম ও তার ভাতিজা গুরুতর আহত হয়। কাউন্সিলর রেজাউল করিমের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য বিমান যোগে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেন চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আলমগীর চৌধুরী। বর্তমানে আহত রেজাউল করিমের সাথে ঢাকায়, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র রয়েছেন বলে নিশ্চিত হওয়া যায়।