করোনায় গ্রামীন জীবন এবং স্বাস্থ্যবিধি!!

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১২:২৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

মুহা:আ: কাইয়ুম

দেশে করোনাকাল ছ’মাস অতিক্রম করলো। করোনা থেকে বেঁচে থাকার শতশত নিয়ম বাতলে দিলেন চিকিৎসকরা। পাল্টে গেলো জীবনযাত্রার সেই চির পরিচিত চিত্র। শুরু হলো সর্বত্র মাস্ক, হ্যান্ডগ্লোভস আর হ্যান্ড স্যানিটাইজারের অত্যাধিক ব্যবহার। সামাজিক দূরত্ব হয়ে উঠলো সবার নিত্যসঙ্গী। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রেস ব্রিফিংয়ে নিয়মিতই জানিয়ে দিতে থাকলো করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। করোনা প্রতিরোধকল্পে অফিস-আদালত, যানবাহন, শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, কল-কারখানা সবই বন্ধ করা হলো। তারপরেও সমগ্র বাংলাদেশে আতঙ্ক ছড়িয়ে বাড়তে থাকলো সংক্রমণ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারেও মানুষের সচেতনতা ছিল চোখে পড়ার মতো।

বর্তমানে বাংলাদেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৩৭০০০ এরও বেশি। মৃতের সংখ্যাও ৪৭০০ ছাড়িয়েছে। তবে আশার কথা হচ্ছে, ২৪০০০০ এরও বেশি মানুষ এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন। কিন্তু হঠাৎ মানুষের মন থেকে প্রথমদিকের সেই ভয় ও সচেতনতা আজ উধাও। অফিস- আদালতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা হলেও, রাস্তা-ঘাট ও গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধির অনুপস্থিতি প্রকট। অথচ আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। একইসাথে মানুষের মধ্যে বাড়ছে অসচেতনতা। শহুরে এলাকায় কিছু বাধ্যবাধকতা থাকায়, মানুষ বাধ্য হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি মানতে। তারপরও একটু সুযোগ পেলেই মানুষ অসচেতন হয়ে ওঠে। অপরদিকে, গ্রাম এলাকায় করোনা নয়, বরং মানুষই করোনাকে কাবু করে ফেলেছে! তাদের ধারণা, করোনার বসবাস আসলে শুধুই ঢাকা বা বিভিন্ন বড় বড় শহরে। আর সামাজিক দুরত্ব শুধু ঢাকা বা বিদেশফেরত মানুষদের জন্য। সেজন্য যারা বিদেশ, ঢাকা, চট্টগ্রাম বা অন্যকোন বড় শহর থেকে গ্রামে আসছে, শুধুমাত্র সেইসব বাড়িকে নিজেদের মত করে লকডাউন করে রাখে অথবা তাদেরকে বাইরে বের হতে নিষেধ করে। তবে এখনও সরকারী অফিস, বিভিন্ন ব্যাংকের শাখা, NGO গুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার চিত্র চোখে পড়ে। আর রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার থেকে শুরু করে সর্বোত্র হতে হারিয়ে গেছে সামাজিক দূরত্ব। কাজির গরু কেতাবে থাকার মতো শব্দটি এখন শুধুই মুখে আওড়ানো হয়। মাস্ক, হ্যান্ডগ্লোভস, হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার করতে দেখা যায় খুব কম মানুষকেই। একদিকে অসচেতনতা আর অন্যদিকে কোন বিধিনিষেধ না মানার ফলে, গ্রামেও বাড়ছে সংক্রমণের ঝুঁকি। তাই, শহরের পাশাপাশি গ্রামেও করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থবিধি মেনে চলার বিষয়টি নিশ্চিত করতেই হবে।

শিক্ষার্থী,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।