কবিতা “বৃষ্টিবিলাসী মেঘ কিংবা তুমি” শাহরিয়ার ফিরোজ

নিউজ নিউজ

ভিশন ৭১

প্রকাশিত: ১০:০৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৪, ২০২০

বৃষ্টি নামলেই এই শহরে,
রিক্সার হুডগুলো ঢেকে দেয়া হয় সাদা কিংবা রঙ্গিন রেক্সিনে।
বিলবোর্ডের সামনের জায়গাটুকুতে অাশ্রিত পথচারী।
দুটো কাক পাশাপাশি ভিজছে,
তাদের তাড়া নেই।
ছোট ছোট টংয়ে কথার ফোয়ারা,
কেমন যেনো; এলেমেলো, অসংলগ্ন।
তবুও সুন্দর,
এক কাপ চায়ে তাতে খারাপ মানায় না।

বৃষ্টি নামলেই এই শহরে,
জমে যাওয়া শক্ত উপাখ্যানে হঠাৎ করেই প্রেম জাগে।
রাজপথে কিংবা কিছুটা অাড়ালে,
রঙ্গিন ছাতার নিচে অাধভেজা শাড়ী অার ঘর্মাক্ত শার্ট মিশে যায়।
তাতে হয়তো কারো কিছু এসে যায় না,
কিংবা চোখে পড়ে না।

এতকিছুর মাঝেও কাকে যেনো খুঁজি,
কোনো এক সত্যিকারের নীলাম্বরী!
চোখের কাজল লেপ্টে গেছে, ঠিক শাড়ীর মতোন।
সস্তা চুড়ির দু’হাত বাড়িয়ে ছুঁয়ে অাছে বৃষ্টি,
বৃষ্টি পড়ছে নীমিলিত অাঁখি বেয়ে,
এক ফোঁটা, দুফোঁটা।
চিৎকার করে বলছে “অসংজ্ঞায়িত করে দাও অামায়”
তাকে কী ছোঁয়া যাবে?
বৃষ্টিনারী, তোমাকে কী স্পর্শ করার অধিকার রাখে বৃষ্টিবিমুখী ভীতু পুরুষ?
নাকি শুধু প্রশ্নেই জাগো,
“কে সেই স্বপ্নচারিনী অনন্যাবেশে,
যার শূন্যচোখে বিষাদ মমতার?”