ইসলামপুরে নোয়ারপাড়া ইউপি সচিব স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া চেয়ারম্যান প্যানেল গঠনের অভিযোগ

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২২, ২০১৯

রোকনুজ্জামান সবুজ জামালপুর ঃ

ইসলামপুরে ৫নং নোয়ারপাড়া ইউপি সচিব ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান প্রয়াত গোলাম মোস্তফা ও ১০জন ইউপি সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া চেয়ারম্যান প্যানেল গঠনের অভিযোগ করেছেন ১০ জন ইউপি সদস্য।
অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার ৫নং নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের প্রয়াত চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা দীর্ঘদিন অসুস্থ্য থাকার একপর্যায়ে সম্প্রতি ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। তার মৃত্যুর পর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করা কথা প্যানেল চেয়ারম্যান -১ ইউপি সদস্য সোলায়মান মন্ডল। কিন্তু চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফার জীবদ্দশায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে গঠিত চেয়ারম্যান প্যানেলের প্রকৃত রেজুলেশন গোপন করেছেন ইউপি সচিব ওমর ফারুক। ওই সচিব ইউনিয়নের ১০ জন ইউপি সদস্য ও তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর জাল করে সম্প্রতি অবৈধভাবে ভুয়া চেয়ারম্যান প্যানেল গঠন করেছেন।
এতে এই ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ নিয়ে প্রকৃত বৈধ চেয়ারম্যান প্যানেল ও অবৈধ ভুয়া চেয়ারম্যান প্যানেল নিয়ে ইউপি সদস্যদের মাঝে তুমুল দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে। এ দ্বন্দ্বের জের ধরে যেকোন মূহুর্তে রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে। ১০ জন ইউপি সদস্য স্বাক্ষরিত অভিযোগে আরও জানা গেছে, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা সুস্থ্যভাবে বেঁচে থাকা অবস্থায় ২০১৭ সনে ইউনিয়ন পরিষদের একটি কার্যানির্বাহী সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় ১২ জন ইউপি সদস্যের মধ্যে ১০ জন সদস্যের সমর্থনে ইউনিয়নের কার্য্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য সাবেক চেয়ারম্যান ২০১৭ সালে তিন সদস্যের একটি চেয়ারম্যান প্যানেল পরিষদ গঠন করেন। ওই পরিষদে চেয়ারম্যান প্যানেল- ১ নির্বাচিত করা হয়েছিল ইউপি সদস্য সোলায়মান মন্ডলকে। একই পরিষদে চেয়ারম্যান প্যানেল-২ নির্বাচিত করা হয়েছিল ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলামকে এবং পরিষদে চেয়ারম্যান প্যানেল-৩ নির্বাচিত করা হয়েছিল ইউপি সদস্য নাজমা বেগমকে। সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা অসুস্থ্য হলে প্রথম দফায় ছুটিতে যাওয়ার সময় চেয়ারম্যান প্যানেল-১ ইউপি সদস্য সোলায়মান মন্ডলকে দায়িত্ব প্রদান করেন। এছাড়াও সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা অসুস্থ্যর কারণে চিকিৎসার জন্য দ্বিতীয় দফায় ছুটিতে যাওয়ার সময় চেয়ারম্যান প্যানেল-২ পদের ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলামকে দায়িত্ব প্রদান করেন। অথচ প্রয়াত চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা মৃত্যুর পর নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের সচিব সাবেক চেয়ারম্যান ও ১০ জন ইউপি সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে সম্প্রতি ভুয়া চেয়ারম্যান প্যানেল গঠন করে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি করেছেন। অবৈধ ভাবে গঠিত ভূয়া প্যানেল চেয়ারম্যান পরিষদে চেয়ারম্যান প্যানেল- ১ নির্বাচিত দেখানো হয়েছে ইউপি সদস্য নজরুল ইসলামকে। একই ভূয়া পরিষদে চেয়ারম্যান প্যানেল-২ নির্বাচিত দেখানো হয়েছে ইউপি সদস্য সোলায়মান মন্ডলকে এবং ওই ভূয়া পরিষদে চেয়ারম্যান প্যানেল-৩ নির্বাচিত দেখানো হয়েছে ইউপি সদস্য নাজমা বেগমকে।
সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফার জীবদ্দশায় সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে গঠিত চেয়ারম্যান প্যানেলের প্রকৃত রেজুলেশন গোপন করে ইউপি সচিব গঠিত অবৈধ ভূয়া প্যানেল চেয়ারম্যান পরিষদ নিয়ে সম্প্রতি দু-পক্ষের মাঝে চরম দন্দ্ব কলহ সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান-১ ইউপি সদস্য সোলায়মান হকসহ ১০জন ইউপি সদস্য দুর্ণীতিবাজ ইউপি সচিব দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী করে ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট একটি লিখিত আবেদন করেছেন। একই আবেদনে ইউনিয়নের ১০জন ইউপি সদস্য সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের জীবদ্দশায় বৈধ ভাবে গঠিত প্রকৃত প্যানেল চেয়ারম্যান পরিষদের চেয়ারম্যান প্যানেল-১ ইউপি সদস্য সোলায়মান হককে ভারপ্রাপ্ত প্যানেল চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করানোর দাবী জানিয়েছেন।
নোয়ারপাড়া ইউপি সচিব ওমর ফারুক জানান, ২০১৭ সালে নোয়ারপাড়া ইউনিয়নে প্যানেল চেয়ারম্যান পরিষদ গঠিত হয়েছে। ওই সময় তিনি নোয়ারপাড়া ইউনিয়নে দায়িত্বে ছিলেন না এবং প্যানেল চেয়ারম্যান পরিষদ গঠনে ক্ষেত্রে তিনি কোন জালিয়াতির আশ্রয় নেন নি বলেও জানান।
ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, নোয়ারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান পরিষদ গঠনের ব্যাপারে ১০জন ইউপি সদস্যের একটি অভিযোগ তদন্তাধীন রয়েছে। অভিযোগটি যাচাই বাছাই শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।