আমি হাসিতে চাই

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ৬:২১ অপরাহ্ণ, জুন ২০, ২০২০

মোহাম্মদ মন্‌জুরুল আলম চৌধুরী।

আমি হাসিতে চাই সুস্থ সুন্দর পৃথিবীতে।
আর চাই না দুঃখ আর শোকে কাঁদিতে।
কাঁদিতে কাঁদিতে চোখ হয়েছে শুষ্ক একফোঁটা জল আর অবশিষ্ট নাই।
প্রতিদিন লাশের স্তুপ দেখিতে দেখিতে চোখেরও যেন আলো নাই।
প্রতিদিন মানুষের কান্না চিৎকার হাহাকার শুনে।
মনপোড়ে যন্ত্রণায় জ্বলে আগুন হৃদয়কোণে।
আর কত শুনিব মানুষের কান্না দেখব লাশের মিছিল।
মন হয়েছে ধৈর্যহারা স্বজনহারা শোকের বিষে নীল।
হে আল্লাহ আমাদের পাপরাশি হয়নি তোমার সহ্য।
পাপের প্রায়শ্চিত্তে পাঠিয়েছ করোনাভাইরাস দেখছ মানুষের ধৈর্য্য।
আমরা হয়েছি মানুষরূপী হায়েনা দানব পশু জানোয়ারেরও অধম।
আমরা সদা করি শিশু নারী নির্যাতন ধর্ষণ খুন হানাহানি আর জুলুম।
প্রকৃতি পরিবেশের প্রতি আমরা বড়ই লোভী নির্দয় নির্মম পাষান্ড নিষ্ঠুর।
আবাসন শিল্প গড়তে নদী নালা খালবিল মাঠ প্রান্তর দখল করিতে করিনা কসুর।
আমাদের জীবন যাপন নোংরা উশৃংখলতা আর অশ্লীলতায় ভরপুর।
সুরা সাকি মদ নারী জুয়া ক্যাসিনোতে রাত গড়িয়ে হয় সকাল দুপুর।
আমরা সদা সর্বদা দূর্ণীতি স্বজন প্রীতি সরকারি তহবিল তছরুপে মশগুল।
মানবিক গুণাবলি ধর্মীয় রীতি দেশপ্রেমকে তুচ্ছ করে এখন গুণছি তার মাশুল।
ভার্চুয়াল জগতে আমরা সবাই এখন দিনানিপাত করি এখানে সবাই খুব একাট্টা আর এক্টিভ।
ভ্রাতৃত্ব সৌহার্দ্য সম্প্রীতি এখন যাদুঘরে বাস্তব বা রিয়েল জগতে সবাই দূরে দূরে একেবারেই ইনেক্টিভ।
হে প্রভু মানব জাতিকে শিক্ষা দিতে পৃথিবীকে শুদ্ধ পরিশদ্ধ করিতে দিলে করোনা।
রয়েছে নজর তোমার গোলামরা নতজানু হয়ে তোমাকে স্মরণ করছে কিনা।
এখন আমরা সদা সর্বদা তোমার প্রার্থণায়রত।
নির্মূল করো করোনাভাইরাস পরীক্ষা নেবে আর কত।
ফিরিয়ে দাও সেই অরণ্য সুখী সুন্দর বসুন্ধরা।
আমরা সবাই আবার গড়ে তুলি সাম্য ভ্রাতৃত্ব আনন্দে হই আত্মহারা।