আমাদের বিবেক এবং মানবতাবোধ জাগ্রত হোক

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২, ২০১৯

——–
মানুষের যে গুনটি সবার আগে থাকা উচিত সেটি হচ্ছে মানবিকতা। মানুষকে মানুষ বলা হয় কারণ তার মধ্যে মানবিকতা আছে, বোধ-বিবেক আছে, হিতাহিত জ্ঞান আছে, ভালো-মন্দ যাচাই করার সক্ষমতা আছে যা অন্য কোন প্রাণী বা জীবের মধ্যে সম্পূর্ণ অনুপস্থিত।
বাংলার মধ্যযুগের কবি চণ্ডীদাস উচ্চারণ করেছিলেন মানব- ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ মানবিক বাণী- ‘সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই।’

একটি ঘটনা উল্লেখ করা যায়-
পুত্রহীন বয়োবৃদ্ধ কামরুজ্জামান। খুবই অসুস্থ। তিন কন্যা এবং অসুস্থ স্ত্রীর ভরণ-পোষণ এবং চিকিৎসার টাকার অভাবে রিক্সা ধরে দাঁড়িয়ে আছেন। থর থর কাঁপছেন আর তার রিক্সায় যাত্রী উঠানোর জন্য ডাকছেন। তার শারীরিক অবস্থা দেখে কেউ রিক্সায় উঠছেনা।

এটি গা শিহরিত হওয়ার মতো সংবাদ নয় কি? এটি মাত্র একটি উদাহরণ। সংবাদমাধ্যম থেকে আমাদের প্রতিনিয়তই পেতে হচ্ছে এমন অসংখ্য অমানবিক সংবাদ। কখনো নির্মমভাবে পিটিয়ে বা পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে শিশু হত্যা কখনোবা চার বছরের শিশুকে ধর্ষণ, কখনোবা ছয় বছরের শিশুকে বলদকারের ঘটনা। আবার কখনোবা বখাটেদের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় এসিড নিক্ষেপ, ধর্ষণ, ধর্ষণের পর হত্যা নয়তো বা কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করার খবর। আর যখনই এ ধরনের খবরগুলি শুনতে হয় তখনই মনে হয় আমারা বোধ হয় সভ্য জগৎ থেকে আজো অনেক দূরে। সভ্যতার আলো বোধহয় আমাদের স্পর্শ করতে ব্যর্থ হয়েছে। আমরা আজ বিবেকহীন হয়ে গেছি! আমাদের মাঝে মানবতা নেই বললেই চলে!

পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যমতে, দেশে বর্তমান দারিদ্র্যের হার কমবেশি ২১ শতাংশ। তবে দলিতদের মধ্যে এই হার ৯০ শতাংশ। মূল সমাজের বাইরে অদৃশ্য অন্ধকারে যেন দলিতদের বসবাস! এই জনগোষ্ঠী শিক্ষার অধিকার, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, আবাসন সংকট, খাদ্য ও পুষ্টিমানের ঘাটতি, প্রজনন স্বাস্থ্যসহ নানান আর্থ-সামাজিক সংকটে আবর্তিত।

এই অল্প সংখ্যক মানুষকে কি এই রাষ্ট্র ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিতে পারে না? এই সমাজ কি চাইলে অল্প সংখ্যক মানুষের দায়িত্ব নিতে পারে না? পারে কিন্তু দায়িত্ব নেওয়ার মত মানুষের বড়ই অভাব এই সমাজে আমাদের মানবিকতা হারিয়ে গেছে! তা যদি না হয় সমাজের একজন মানুষ কি নেই! যে একটা দরিদ্র মানুষের দায়িত্ব নিতে পারবে। এটাও যদি না পারে আমরা সবাই সম্মিলিত ভাবে একটি পরিবারের দায়িত্ব নিতে পারি না? আমরা পারব তখনই যখন আমরা মানুষের কষ্ট বিবেক দ্বারা উপলব্ধি করতে পারব, অন্যের কষ্টে ব্যাথিত হবো, অন্যের কষ্টকে যখন নিজের বলে ভাবতে পারব।

সর্বদা সরকারের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজ বিবেক থেকে এগিয়ে আসা উচিত আমাদের। একজন মানুষ ক্ষুধায় কাতরাচ্ছে! একজন মানুষ মাথা গুজাবার জায়গা পাচ্ছে না! একজন মানুষ চিকিৎসার অভাবে মারা যাচ্ছে! বৃদ্ধ মা-বাবা ভিক্ষা করছে! এইসব চোখের সামনে দেখার পর সরকার কখন দিবে সেদিকে তাকিয়ে না থেকে আপনার কাছে সামর্থ আছে আপনি এগিয়ে আসুন কিংবা আপনার প্রতিবেশীদের সাথে এই ব্যাপারে আলোচনা করুন সবাইকে সাথে নিয়ে সহযোগিতা করুন। এইভাবে যেদিন আমরা মানবিক এবং বিবেকবোধ সম্পূর্ণ মানুষ হবো সেদিন এই দেশ সত্যিকারেই এগিয়ে যাবে।

আপনি একটি সমাজ পরিবর্তন করতে চান কিংবা একটি সমাজের নেতা হতে চান কিন্তু আপনার মধ্যে মানবিকতা এবং বিবেকবোধ নেই! তাহলে আপনার দ্বারা ঐ সমাজ ও রাষ্ট্রের কোন কল্যাণ তো নয় বরং ক্ষতি হবে। সবার আগে চেষ্টা করুন মানবিক এবং বিবেকবোধ সম্পূর্ণ মানুষ হওয়ার জন্য তাহলেই আপনার দ্বারা রাষ্ট্র ও জনগণের কল্যাণ হবে।

আমরা অন্ধ বিবেকের বদ্ধ ঘরে থাকতে চাই না। আমাদের সমাজ, আমাদের দেশ সুন্দরভাবে সাজাতে চাই। মানবিক আলোয় ভরে উঠুক আমাদের সমাজ। সত্য, সুন্দর ও স্বচ্ছতায় জেগে উঠুক বিবেক। সবার ঘুমিয়ে থাকা মানবিকতা এবং মনুষ্যত্ব জাগ্রত হোক এই কামনা।
———–
আমজাদ হোসেন হৃদয়
শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়