আজ পৃথিবীর অসুখ করেছে!

নিউজ নিউজ

এডিটর

প্রকাশিত: ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০

———————
ছোট্ট ছাদমান কিংবা তুলি। তারাও আজ অপেক্ষা করে আবার কবে বাজবে ছুটির ঘন্টা! সারাদিন সেই কর্মব্যস্ত জীবনে ছুটির ঘন্টা শুনে যেন সবাই বাড়ি ফেরার জন্য ছটফট করে। ছোট শিশুরাও যেন ক্লাস শেষে ঘরে ফেরার অপেক্ষা করে। ছুটির ঘন্টা মনে করিয়ে দেয় আজকের মত ক্লাস শেষ। পৃথিবী কতদিন শোনেনি সেই আওয়াজ! মৃত্যুর খেলা যেন থমকে দিয়েছে সবকিছু। চারিদিকে শুধু মৃত্যু মৃত্যু গন্ধ! বাইরে বৃষ্টি! অথচ ভিজতে মানা। ফুচকা খাওয়ার জন্য পাগল নুসরাত ও আজ ঘরে বন্দী। রহিম চাচার ঝালমুড়ির দোকান আজ আর মোড়ে আসেনা। স্কুলের সেই খেলার মাঠে আজ ঘাসদের বেড়ে ওঠার পাল্লা। যানজট কোলাহলে আজ আর ঘাম ঝরে না রিকশাওয়ালা মামার। ব্যাট আর বল হাতে জারিফ আর মাঠে ছোটে না। থমকে যাওয়া পৃথিবী দেখতে জানালার গ্রিলে মাথা রাখে কিশোরী। ছুটে চলা মেঘের দল ও আজ যেন থমকে গেছে। আজ নিঃশ্বাসে নিঃশ্বাসে ভয়। আবার কি নতুন ভোর আসবে? আবার সকালের সূর্য দেখে সকাল টা শুরু হবে! আবার কি দল বেঁধে, কাঁধে কাঁধ রেখে স্কুলে যাবে নয়ন রা! শুক্রবারে পিকনিকে মুখর থাকা সেই দিন গুলো কি আদৌ আর আসবে?

সব কিছু কেন এমন থমকে গেল? আজ পৃথিবীর অসুখ করেছে যে। গো-গ্রাসে গিলে নিচ্ছে দানব রূপি অসুখ। এক চুল ছাড় দেয়না সে। ভালোবাসাতে দূরত্ব আনে সে। হাত ধরে হাঁটতে মানা, কাছে গিয়ে বসতে মানা। সেই দানবের সবকিছুতেই বারণ। ছুটতে ছুটতে ক্লান্ত হয় না সে। ক্লান্ত করে পৃথিবী কে। কেড়ে নেয় দাদুর কোলে বসে গল্প করার সৌভাগ্যকে। কেড়ে নেয় বাবার লাশের দাফন করাকে।

ঘরের মধ্যে বন্দী করে সবাইকে। মনে হয় এই বুঝি পালিয়ে গেল। আবার ফিরে আসে। এতটুকু মায়া নেই তার। পৃথিবীকে সর্বশান্ত করবে সে। বাতাসে বাতাসে লাশের গন্ধ ছড়িয়ে উল্লাস করে সে।

তবুও নতুন ভোরের আশায় পৃথিবী। হয়তো আগামীকাল ই নতুন সূর্যে প্রাণ থাকবে। আগের মতই হাসবে পৃথিবী প্রাণ খুলে। সবার কামনা সেরে উঠুক পৃথিবী।

লেখক :
মেহেরীন আক্তার শান্তা
তথ্যবিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগ, ১ম বর্ষ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়