দোয়ারা সীমান্তে ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করায় যুবক জেল-হাজতে

26697015_1406758756119505_2058158795_n.jpg

এম এ মোতালিব ভুইয়া:
দোয়ারাবাজার সীমান্ত এলাকায় ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টার অভিযোগে মিছির মিয়া (২৬) নামে এক যুবককে বিজিবি সদস্যরা আটক করে থানায় সৌপর্দ করেছে। সে উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের ঝুমগাঁও গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য মনির মিয়ার পূত্র। গত সোমবার রাতে ভারতের বিএসএফ সদস্যরা সীমান্ত পাড়ি দেয়ার সময় আটক করে বেদড়ক পিটিয়ে বাংলাদেশের সীমানায় ছেড়ে দেয়। পরে বাঁশতলা বিজিপি ক্যাম্প সদস্যরা তাকে আটক করে মধ্যরাতে দোয়ারাবাজার থানা পুলিশে কাছে ১০বোতল ভারতীয় মদ ও ২শ’ রুপিসহ হস্তান্তর করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আটক মিছির মিয়াকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সুনামগঞ্জ জেল-হাজতে পাঠানো হয়েছে।
আটক মিছির মিয়ার পিতা মনির মিয়ার অভিযোগ, তার ছেলে কমলা আনতে গেলে বিএসএফ সদস্যরা তাকে মারপিট করে ছেড়ে দেয়। পরে বিজিবি সদস্যরা এলাকাবাসীর অনেক লোকজনের সামনে আমার ছেলেকে খালি হাতে ধরে নিয়ে যায়। পরে তাকে মারপিট করে মদ ও ভারতীয় রুপিসহ তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
মিছির আলীর চাচাতো ভাই রাকিব জানান আমি বিএসএফের নিকট থেকে তাকে গ্রহন করার পরে বিজিবি সদস্যা আমার নিকট থেকে আটক করে নিয়ে যায়, তখন সে আহত অবস্থায় ছিল তখন তার কাছে কিছুই ছিলনা এখন মদ ও ভারতীয় টাকা কোথায় থেকে আসলো?
মিছির আলীর পরিবার অভিযোগ জানান এলাকায় গুঞ্জন চলছে তাকে মদ দিয়ে চালান দিবে এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে সত্যতা যাচাইয়ে সন্ধায় প্রতিবেদক বাশতলা বিওপিতে গেলে তাকে ডুকতে দেওয়া হয়নি

দোয়ারাবাজার থানার ওসি সুশীল রঞ্জন দাশ বলেন, মিছির মিয়ার বিরুদ্ধে বিজিবি’র বাশতলা ক্যাম্পের নায়েক খায়রুল ইসলাম বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে দোয়ারাবাজার থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
এ ব্যাপারে বিজিবি সুনামগঞ্জ ২৮ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক ল্যাফটেনেন্ট কর্ণেল নাসির উদ্দিন আহমদ বলেন, আটক মিছির আলীর বিরুদ্ধে মাদকসহ বিভিন্ন চোরাচালানী ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

Top