বরুমচড়া শহীদ বশরুজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব শুরু

26648155_1578695805499054_1189874233_n.jpg

ছলিম আল আনোয়ার,আনোয়ারা প্রতিনিধিঃ

‘এসো মিলি প্রাণের বন্ধনে ,শৈশব কৈশোরের প্রিয় প্রাঙ্গনে’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে শুরু হয়েছে বরুমচড়া শহীদ বশরুজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই দিনব্যাপী সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব। আনোয়ারার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়টির ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ।
শুক্রবার (০৫ ডিসেম্বর) সকালে বিদ্যালয় চত্বরে বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে ও বর্ণাঢ্য র্যালীর মাধ্যমে উৎসবের উদ্বোধন করেন আনোয়ারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব তৌহিদুল হক চৌধুরী ৷
পরে আশরাফ উদ্দীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অধিবেশনের আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আলহাজ্ব মাওলানা এম এ মতিন। প্রধান আলোচক ছিলেন ইন্জি. আবু মোঃ রাশেদ চৌধুরী ৷ বিকেল ৩টা থেকে আলহাজ্ব তৌহিদুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের দ্বিতীয় অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি প্রতিমন্ত্রি আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এম.পি ৷ প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জিনবৌধি থের ৷ অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সাদ মুছা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব মহসিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ সদস্য রেহেনা ফেরদৌস, ক্লিপটন গ্রুপের নির্বাহি পরিচালক এডিএম মহিউদ্দীন চৌধুরী, ইউনিয়ন ব্যাংক লিঃ এর অতি. ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ বি এম মোকাম্মেল হক চৌধুরী,শাহ মোহছেন আউলিয়া ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক এ কে এম জহিরুল ইসলাম , চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ প্রমুখ । বিশেষ আলোচক হিসেবে ছিলেন, বরুমচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব মোঃ আমিরুজ্জামান, এম মন্জুর উদ্দিন চৌধুরী, মোহাম্মদ আলী, হুমায়ন কবির চৌধুরী আনছার, মোঃ খোরশেদ আলম, ডাঃ লক্ষিপদ দাশ এবং মউসুফ উদ্দীন মাসুম৷
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, দেশ ও জাতি গড়তে শিক্ষার বিকল্প নেই। এই এলাকায় মেয়েদের শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে শহীদ বশরুজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ের ভূমিকা অন্যতম। এই বিদ্যালয়ে শিক্ষা অর্জন করে অনেকেই দেশের ভালো ভালো অবস্থানে আছেন।
পাশিপাশি তারা দেশ ও জাতি গঠনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছেন। আগামীতেও সেই ধারা অব্যাহত রেখে দেশকে এগিয়ে নিতে বিদ্যালয়টি ভূমিকা পালন করে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
সন্ধ্যা ৬:৩০ থেকে শুরু হয় তৃতীয় অধিবেশন ৷ আবুল মনছুর মোঃ হাবিবের সভাপতিত্বে এই অধিবেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপচার্য ড. শিরিন আখতার৷ রাত ৮:৩০ থেকে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শনিবার (০৬ডিসেম্বর) উৎসবের দ্বিতীয় দিন প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্মৃতিচারণ এবং অতিথি শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। উৎসবে সাবেক ও বর্তমান প্রায় দশ হাজার শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবেন।
চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বরুমচড়া গ্রামে উচ্চ বিদ্যালয় হিসেবে ১৯৬৮ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয় ।

Top