ঘূর্ণিঝড় মোরায় লন্ডভন্ড টেকনাফ

teknaf-pic-b.jpg

ফরহাদ আমিন, টেকনাফ
ঘূর্নিঝড় মোরার আঘাতে টেকনাফ লন্ডভন্ড। হাজার হাজার ঘরবাড়ি, গাছপালার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে প্রাণহানির মত কোন ঘটনা ঘটেনি। মঙ্গলবার রাত ২ টার দিকে সেন্টমার্টিন থেকে দমকা হাওয়া শুরু হয় এটা অগ্রসর হয়ে টেকনাফ উপক’ল অতিক্রম করার সময় প্রচন্ড বাতাসের তোড়ে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয় উপড়ে যায় হাজার হাজার গাছপালা। এতে কমপক্ষে ২০ থেকে ৩০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
টেকনাফ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ জানান, মঙ্গলবার ভোরে ঘূর্নিঝড় মোরার আঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ১৩ মেট্রিক টন চাউল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মোরা পুরো উপজেলাতেই আঘাত করে। এর মধ্যে কঠোর আঘাত হেনেছে উপকূলীয় টেকনাফের সেন্টমার্টিন, বাহারছড়া, শাহপরীর দ্বীপ, সাবরাং, , হোয়াইক্যং,হ্নীলা,টেকনাফ পৌরসভা ও সদরে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি ও গাছপালার। টেকনাপে কয়েক হাজার কাঁচা ও
পাকা ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। বিধ্বস্ত হয়েছে ব্যাপক গাছ-গাছালি, বিদ্যুৎ লাইন। ক্ষতি হয়েছে টেকনাফের পানবরজ। এছাড়াও টেলিফোন লাইন, ডিস লাইন বিধ্বস্ত হয়েছে। বিদ্যুৎ লাইন বিছিন্ন
হয়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎবিহীন রয়েছে পুরো টেকনাফ উপজেলা।
তিনি আরও জানান, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে তথ্য চাওয়া হয়েছে এখনও পূর্ণাঙ্গ তথ্য পাওয়া যায়নি।
বাহারছড়া ইউপি চেয়ারম্যান মা: আজিজ উদ্দিন জানান, টেকনাফের বাহারছড়ায় ঘরবাড়ি, গাছপাল ও পানের বরজের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

Top