হতাশা কাকে বলে !! হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি।

received_256472425030019.png

আলিম আল তারিফ।
.
‘হতাশা’ শব্দটি একটি বিশেষ্য পদ, যাকে ইংরেজিতে depression বা, frustration বলে।

মানুষের এক অদ্ভুত আবেগ রয়েছে যার নাম আশা, সে মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে আগামীকালের অপেক্ষায়। মানুষ তার ভবিষ্যতের জন্য আশা করে, স্বপ্ন দেখে বলেই নিজের মাঝে সাহস আর শক্তি খুঁজে পায় বেঁচে থাকার জন্য। কিন্তু আবার এই আশার উল্টো পিঠে বাস করে হতাশা যে মুহূর্তের মধ্যে ঠেলে দিতে পারে অতল অন্ধকারে। হতাশ হওয়া বা নিরাশায় আক্রান্ত হওয়ার পিছনে রয়েছে হাজার কারন। প্রতিটি মানুষের কাছেই তার নিজের কারণটি গুরুত্বপূর্ণ, কেননা একমাত্র তিনিই জানেন যে কি ভীষণ কষ্টের মাঝে নিজেক চলতে হচ্ছে পথ। মানুষ আশা করে বলেই স্বপ্ন দেখে, আর স্বপ্ন দেখে বলেই সেটাকে সত্য করার জন্য এগিয়ে যায়। এর এগিয়ে যেতে যেতেই একদিন স্পর্শ করে ফেলে নিজের লক্ষ্য।
.
যদি লক্ষ্য বা ইচ্ছেপূরণ না হয় অথবা কাজের আশানুরূপ ফল না পেলে যে মানসিক অবসাদের সৃষ্টি হয় তা হলো হতাশা। লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব না হলে হাল ছেড়ে দেয়ার প্রবণতা-ই হতাশার লক্ষণ। হতাশা একটি মানবিক
অনুভূতি যার মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি কখনও মানসিক বিপর্যয় সৃষ্টি করে ও সুইসাইড এর পথ বেচে নেয়।যা সমাজে প্রতিনিয়ত হচ্ছে নিজের ব্যার্থতার কারনে ও চারদিকের বিভিন্ন কথার চাপে।
.
.
ইদানিং হতাশা নামটা খুব বেশি শুনতেছি কিন্তুু কখনো দেখি নাই তবে এখন নিজেকেই হতাশায় গ্রাস করে আছে।তবে প্রত্যেকেরই জীবনে ছোট বড় হতাশার গল্প থাকে। না পাওয়ার গল্প, কষ্ট পাওয়ার গল্প, অশ্রুভেজা রাতের একাকিত্বের গল্প।
কারো থাকে না খেয়ে থাকার নির্মম গল্প, টিউশুনির গল্প, খাঁ খাঁ রোদে ভেজা শার্টের গল্প।
আরো থাকে নির্মম অবহেলার গল্প। ছোট লোকের গল্প, বড় মানুষের গল্প। প্রেম করতে না পারার গল্প। আবার প্রেম করে ছেকা খাবার গল্প। পরীক্ষায় ভাল ফলাফল না করার গল্প। বন্ধুদের আড় চোখো তাকানোর গল্প।ভাল চাকরি না পাবার গল্প।
প্রতিটা কষ্টই মানুষকে শক্ত করে তোলে ও শিক্ষা দেয় সামনের পথ গুলা চলার। বাস্তবতা বড়ই নিঃস্ঠুর।
.
ঠিক আজ নিজের চোখেমুখে হতাশার ছাপ।বার বার হোচট খেতে হচ্ছে, নিজেই নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশ। অন্য আরেক বন্ধুকে দেখলাম প্রেম নিয়ে হতাশ। অন্য এক বন্ধু ইট, পথরের শহরে এসে নতুন চাকরি না পাওয়ায় হতাশ।এভাবে ইদানিং প্রায় সবার মুখেই হতাশার কথা শুনে নিজের হতাশার কথাও চিন্তা করি নিজেকে নিয়ে।আমি কি ছিলাম? এখন কি হলাম? কেনই বা এই হতাশাগ্রস্থ হতে হল?তবে হাল ছারছি না শেষ দেখব কত দূর এগানো যায়।
.
.
হতাশা কোন অস্বাভাবিক কিছু না। সবাই কমবেশী আমরা অতৃপ্তিতে ভুগি। কিন্তু কখনো একটা কিছু ধরে নিয়ে কিংবা মেনে নিয়ে বসে থাকাটাই জীবন না। কমতি সবার মধ্যেই আছে। নিজেকে একমাত্র হতভাগা ভাবার মধ্যে কোন মহিমা নাই। আজকে যা হচ্ছে না কালকে হবে, না হলেও অন্যকিছু ভালো হবে। তাও না হলে জীবন থেমে থাকবে না। নিজের সমস্ত ভালোকিছুর ওপর বিশ্বাস স্থাপন আর যত তিক্ততা আছে ভুলে গেলেই হতাশা কেটে যায়।তবে সুইসাইড এর সমাধার নয়। কারন একটাই জীবন, এগুলা ভুলে থাকার বেস্ট উপায় নামাজ।আল্লাহর সাথে 24434 নম্বরে কথা বলে ( পাচ ওয়াক্ত নামাজ)সকল মুসকিল থেকে মুক্তি চাওয়া।
.
.
আমিও এখন চরম হতাশার মধ্যে আছি। যানি না এই হতাশা কবে দূর হয়।নিজের মধ্য উদাসিনতা।কোন ভাল কথাও ভাল লাকছে না। মেজাজটা খিটখিটে হয়ে থাকে।তবে চেস্টা করছি সকল বাধা বিপত্বি পেরিয়ে সকলের সাথে হাসি মুখে থাকতে।
.
তারপরেও সর্বপরি আমার মত হতাশাগ্রস্ত ব্যক্তিদের বলবো কিছু ব্যক্তিদের জীবন কাহীনী পড়তে। যেমন নিকের গল্প, আতাউর রহমানসহ আরো বিভিন্ন ধরনের আদর্শবান ব্যক্তিদের গল্প। যাদের গল্প বা জীবন কাহীনী থেকে পাওয়া যাবে হতাশা কাটিয়ে আশাবাদী হবার উপায়।এবং অন্ধকার থেকে আলোর সন্ধান পাওয়া।নিজের প্রতি আস্থা রাখা

Top