ফেসবুকের শেষ পোষ্টেও মানুষের সাথে থাকার ইচ্ছা ছিল জিএম রহিমুল্লাহর

received_490510388138386.jpeg

শহীদুল ইসলাম বাবর ঃ
ইউনিয়ন পরিষদ থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান। সবখানেই আছে সফলতার স্বাক্ষর। রাজনীতির কারনে বেশ কয়েক বার কারাগারেও বন্ধি থাকতে হয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়েও কক্সবাজারে দায়েরকৃত একাধিক মামলায় আসামী করা হয় তাকে। এসব মামলায় আগাম জামিনের জন্য ঢাকায় গেছেন বেশ কয়েকবার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার নিজের ওয়ালে সর্বশেষ গত ৭ নভেম্বর রশিদ নগর ও দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নে কয়েকটি ছবি পোষ্ট করেছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, চৌফলদন্ডি, রশিদনগর ও দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের জনগনের সাথে কিছুক্ষণ। জনগনের সমস্যা সামাধানে আপনাদের খেদমত সব সময় সাধ্যমত সাথে থাকব ইনশাআল্লাহ। এর আগের দিন উপজেলা পরিষদের কার্যলয়ে কাজ করার কয়েকটি ছবি পোষ্ট করে লিখেছেন বেশ কদিন জনগনকে সেবা করা থেকে বঞ্চিত ছিলাম। গতকাল অর্থ্যাৎ ৫ নভেম্বর সুপ্রীমকোর্ট থেকে জামিনের পর আজকে অফিস করলাম। আজীবন জনগনের খেদমতে থাকার তৌফিক দাও হে প্রভু। আমীন। একই দিন তিনি লিখেছেন আলহামদুলিল্লাহ। গতকাল ৪ নভেম্বর কক্সবাজার সদর থানার জি আর মামলা নং-১৬৫ সকল কার্যক্রম পরবর্তি শুনানী না হওয়া পর্যন্তু পেন্ডিং রাখেন মহামান্য হাইকোর্টের ১৪ নং কোর্ট। আর ২৮ অক্টোবর কক্সবাজার সদর মডের থানায় দায়েরকৃত মামলা নং-৮৪ এর আগাম জামিন দিয়েছেন ১৯ নং কোর্ট। চলতি বছরের ২৬ অক্টোবর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরির্দশনের ছবি দিয়ে লিখেছেন পরিস্থিতি যাই হউক সকল বাধাঁ, ষডযন্ত্র মোকাবেলা করে ধৈর্য ও অদম্য সাহস নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। মেহনতি মানুষ আমাদের সাথে আছে ইনশাআল্লাহ। জি এম রহিমুল্লাহ আর আমাদের মাঝে নেই। থাকবে তার রেখে যাওয়া উন্নয়ন চিত্র। কক্সবাজারবাসী স্মরণ রাখবে এ উন্নয়ন পাগল জনপ্রতিনিধিকে।।

Top