ফটিকছড়ি-হেঁয়াকো সড়ক’র বিকল্প সড়ক ছাড়াই ব্রীজের কাজ চলমান, যান চলাচল ব্যাহত !

received_271638673390580.jpeg

সাইফুল ইসলাম, ফটিকছড়িঃ-

ফটিকছড়ি-হেঁয়াকো সড়ক’র বিকল্প সড়ক না করে একই সকড়ে ব্রীজের কাজ চলছে। ফলে বিকল্প সকড় না থাকায় গাড়ী চলালচ ব্যাহত হচ্ছে।

২শত ৪৬ কোটি টাকার কোটি টাকা ব্যয়ে ফটিকছড়ি পেলাহগাজী-হেঁয়াকো পর্যন্ত সড়ক প্রশস্ত করন ও কালভার্ট নির্মাণ কাজে শুরু থেকেই অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে৷সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তাদের নিন্ম মানের কাজের খবর প্রকাশের পর সরেজমিনে গেলে প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ কালভার্ট নির্মাণের বিকল্প সড়কে প্রায় স্থানে নেই কোন ইট৷এতে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি পড়লে রাস্তা কাদাময়ের দরুন জন-যান চলাচলের সময় মারাত্মক দূর্ঘটনার সম্ভাবনা থেকেই যায়।

বিশেষ করে ভূজপুর থানার সামনেই বিকল্প সড়ক ছাড়াই একটি কালভার্ট নির্মাণের কাজ করতে গেলে কালভার্টটি ধ্বসে পড়ার কারনে প্রায় এক সপ্তাহ যাবৎ জনসাধারণ ও যান চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়েছে৷

এ ব্যাপারে উক্ত সড়কের কালভার্ট নির্মাণের দায়িত্বে থাকা সহকারী প্রকোশলী মুহম্মদ মামুন এর সাথে সরাসরি কথা হলে তিনি বলেন প্রত্যেকটি কালভার্টের বিপরীত সড়কে HB ইট দেয়া আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্যের মধ্যে পড়ে তবে ভারী যান চলাচলের দরুন এই ইট সমুহসহ কাচা সড়ক ধেবে যাচ্ছে বলে অনেক স্থানে ইট দেয়া সম্ভব হয়নি৷ অবশ্যই এখন সব স্থানে ইট বসানো হচ্ছে তবে ভারী যান চলাচল বন্ধ না হলে ফলপ্রসু হবেনা৷

আর ভুজপুর থানার সামনে কালভার্টটি বিকল্প সড়ক ছাড়া নির্মাণ করতে চেয়েছিলাম কারন মনে করছিলাম মাটিসমূহ শক্ত তাই এক পার্শ্বে কাজ করলে অন্য পার্শ্বে জন ও যান চলাচল করতে পারবে৷কাজ করতে গিয়ে দেখি মাটিসমূহ খুবই নরম তাই পুরো কালভার্টটি ধেবে গেল৷এ জন্য আমরা আন্তরিক দুঃখিত কথা দিচ্ছি আজ ১৯ নভেম্বরের মধ্যেই বিকল্প সড়কের কাজ শেষ হবে এবং জন ও যান চলাচল স্বাভাবিকভাবে করতে পারবে৷

উল্লেখ্য ২৪৬ কোটি টাকার এ বৃহৎ প্রকল্পটির ঠিকাদার তাহের এন্ড ব্রাদার্স ৷

Top