জাতীয় পার্টির নির্বাচনী তৎপরতা রাজনৈতিক সমীকরণের দিকে চেয়ে যশোরের ৯ মনোনয়ন প্রত্যাশী

IMG_20181118_020459.jpg

আব্দুর রহিম রানা, যশোর ;
আগামী ডিসেম্বরের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে যশোরের ছয়টি আসনে জাতীয় পার্টির ৯ নেতা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল শেষ দিন পর্যন্ত জেলার তিনটি সংসদীয় আসনে দুইজন করে এবং অপর তিনটিতে একজন করে প্রার্থী লাঙ্গল প্রতীকের জন্য আবেদনপত্র জমা দেন। আজ পার্টির প্রধান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ এসব প্রার্থীদের সাক্ষাতকার নিবেন।
ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে অংশ না নিলে তারা আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিপক্ষে নির্বাচন করবেন। আর ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে অংশ নিলে তারা মহাজোট থেকে সমর্থন পেলে সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১২ নভেম্বর থেকে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমাদান কার্যক্রম শুরু হয়। আর শেষ হয় গতকাল। এই সময়ের মধ্যে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে তা জমা দিয়েছেন যশোরের ৯জন নেতা। এর মধ্যে যশোর-১ (শার্শা) আসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন শার্শা উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ডা. আক্তার হোসেন, যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসন থেকে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মুফতি ফিরোজ শাহ, যশোর-৩ (সদর) আসন থেকে জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম বাচ্চু ও সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম মোল্যা, যশোর-৪ (অভয়নগর-বাঘারপাড়া) আসন থেকে জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জহিরুল হক ও অভয়নগর উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদ সাব্বির হোসেন, যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসন থেকে মণিরামপুর উপজেলা পার্টির সভাপতি আব্দুল হালিম ও সদস্য অ্যাডভোকেট আব্দুল লতিফ এবং যশোর-৬ (কেশবপুর) আসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন কেশবপুর উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ।
এ ব্যাপারে জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শরিফুল ইসলাম সরু চৌধুরী বলেন, ‘কৌশলগত কারণে আমি নিজে মনোনয়নপত্র ক্রয় করিনি। তবে আমাদের পার্টি থেকে যশোরের সব আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি আছে। এজন্য ৯ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে কারা মনোনয়ন পাবেন তা এখন বলা যাচ্ছে না।’
আর পার্টির যশোর জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জহিরুল হক বলেন, ‘আমাদের চেয়ারম্যান মনোনয়নপত্র ক্রয় করতে বলেছেন। যদি বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেয়, তাহলে আমারা এককভাবে নির্বাচন করবো। আমাদের সেই প্রস্তুতি আছে। আর যদি জাতীয় পার্টি মহাজোটে যোগদান করে তাহলে আমরা জোটের সমর্থন নিয়ে নির্বাচন করবো। তাই নির্বাচনে অংশ নেওয়া নিয়ে এখনই শেষ কথা বলা যাচ্ছে না। তবে আমরা সব পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত আছি।’

Top