বাকঁখালী রেঞ্জের উপকার ভোগীদের মাঝে চেক বিতরণ অনুষ্টানে প্রধান বন সংরক্ষক

received_433289293867696.jpeg

মোঃসাইদুজ্জামান সাঈদ, রামুঃ

সামাজিক বনায়ন করে দরিদ্র জনগোষ্ঠী দ্রুত আর্থিক স্বচ্ছল হচ্ছেন।
কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের বাকখালী বন রেঞ্জের সামাজিক বনায়নের উপকার ভোগীদের মাঝে লভ্যাংশের চেক বিতরনী অনুষ্টানে প্রধান বন সংরক্ষক সফিউল ইসলাম চৌধুরী বলেছেনঃ সরকারের যুগান্তকারী কয়েকটি প্রজেক্টের মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি প্রজেক্ট হচ্ছে স্হানীয় জনগনের সমন্বয়ে সামাজিক বনায়ন প্রজেক্ট। সারা দেশব্যাপী সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে দরিদ্র জনগোষ্ঠী আর্থিক ভাবে সুফল পাওয়ায় স্হানীয় জনগোষ্ঠীর আগ্রহ ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে।
কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগীয় কর্মকর্তার কার্যালয়ে আয়োজিত সামাজিক বনায়নে উপকারভোগীদের মাঝে লভ্যাংশের চেক বিতরনী অনুষ্টানে সভসপতিত্ব করেন বন সংরক্ষক ডঃ মোঃ জগলুল হোসেন।সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বন সংরক্ষক ডঃ মোঃ জগলুল হোসেন বাকখালী রেঞ্জের দায়িত্বে নিয়োজিত রেঞ্জ কর্মকর্তা একেএম আতা এলাহীর ভুয়সী প্রশংসা করে বলেন,বাকঁখালী বন রেঞ্জের প্রতিটি সামাজিক বনায়নের স্পট তিনি স্বয়ং পরিদর্শন করেছেন।এবং বাকঁখালী রেঞ্জে দায়িত্বে নিয়োজিত রেঞ্জ কর্মকর্তা – কর্মচারী ও স্হানীয় সামাজিক বনায়নের উপকারভোগীদের সুষ্ট ব্যবস্হা গ্রহনের কারনে সামাজিক বনায়নে কাঙ্গিত সফলতা এসেছে।সভাপতি তার বক্তব্যে আগামীতে আরো সামাজিক বনায়ন করে আর্থিক স্বচ্ছলতা আনার উপর গুরুত্বারোধ করেন।উক্ত অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগীয় কর্মকর্তা হক মাহাবুব মোর্শেদ,কক্সবাজার দক্ষিন বন বিভাগীয় কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির,কক্সবাজার সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা ও স্পেশাল টহল ফাড়িঁর ওসি মেহেদী হাসান।
বাকঁখালী বন রেঞ্জ কর্মকর্তা একেএম আতা এলাহীর প্রাণবন্ত পরিচালনায়।কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের বাকঁখালী রেঞ্জের উপকার ভোগীদের মাঝে মোট ১ কোটি ৮২ লক্ষ টাকার লভ্যাংশের চেক আনুষ্টানিক ভাবে হস্তান্তর করেন।

Top