উপকূলে ঘূর্ণিঝড় তিতলী কুতুবদিয়া উপজেলা প্রশাসনের সতর্ক সংকেত প্রচার

a14ad2d35d60058e8f78331c12c3093b-5bbc558598349.jpg

নজরুল ইসলাম,কুতুবদিয়া:

পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় তিতলী সামান্য উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়ে পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় (১৭.৫০ উত্তর অক্ষাংশ ৮৫.৪০ দ্রাঘিমাংশ) হ্যারিকেনের তীব্রতা সম্পন্ন প্রবল ঘূর্ণিঝড় তিতলী’তে পরিণত হয়েছে। এটি ১০ অক্টোবর ( বুধবার) সন্ধ্যা ৬ টায় চট্টগ্রাম সমূদ্র বন্দর থেকে ৮৮০ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে,কক্সবাজার সমূদ্র বন্দর থেকে ৮৫০কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা সমূদ্র বন্দর থেকে ৭২০ কিমি দক্ষিণ পশ্চিমে এবং পায়রা সমূদ্র বন্দর থেকে ৭৪০ কিমি দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরো উত্তর/উত্তরপশ্চিমে অগ্রসর ও ঘণীভূত হয়ে ১১ অক্টোবর সকাল নাগাদ গোলাপ পুরের নিকট দিয়ে ভারতের উড়িষ্যা-অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করতে পারে। প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কি.মি এর মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ একটানা গতিবেগ ১২০কিমি যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া আকারে ১৪০ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। (সূত্র আবহাওয়া অধিদপ্তর) আবহাওয়া অধিদপ্তর আরো জানিয়েছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর বিক্ষুব্ধ রয়েছে। চট্টগ্রাম,কক্সবাজার,মংলা ও পায়রা সমূদ্র বন্দরকে ৪ নং স্থানীয় সর্তক সংকেত দেখিয়ে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার সমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ স্থানে থাকবে বলা হয়েছে।

এদিকে দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ায় গুরুত্ব সহকারে আবহাওয়ার বিশেষ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করেছে কুতুবিদয়া উপজেলা প্রশাসন। ১০ অক্টোবর বিে লে পুরো উপজেলায় মাইকিং করে স্থানীয়দের সর্তক থাকতে বলা হয়। প্রশাসনের কর্মকর্তা (ইউএনও) মনোয়ারা বেগম পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়ার পর্যন্ত কুতুবদিয়া উপকূলের সকল মাছ ধরার নৌকা অথবা ট্রলার সমূহকে নিরাপদ স্থানে থাকার নির্দেশ দেয়ার পাশাপাশি কুতুবদিয়া চ্যানেল পারের যানগুলোকে (স্পীড বোট ও ডেনিশ) তীরে অবস্থান করার নিদের্শ দিয়েছেন।

Top