কর্ণফুলী থানার এসআই মোঃ আলমগীর হোসেন শ্রেষ্ঠ অফিসার নির্বাচিত

39398697_404114767024739_5679185713053040640_n.jpg

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

মাদক ও অপরাধ নিয়ন্ত্রণে প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখায় পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে শ্রেষ্ঠ উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) নির্বাচিত হলেন কর্ণফুলী থানার মোঃ আলমগীর হোসেন।

সোমবার (১৩ আগস্ট) সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম দামপাড়া পুলিশ লাইনস্থ চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ সদর দপ্তর সম্মেলন কক্ষের মিলনায়তনে সিএমপির মাসিক ক্রাইম কনফারেন্স (অপরাধ দমন) সভায় মাদক ও মাদক নিয়ন্ত্রণকারী কর্মকর্তা হিসেবে তাকে শ্রেষ্ঠত্বের সম্মাননা প্রদান করেন সিএমপি কমিশনার মোঃ মাহবুবুর রহমান পিপিএম।

বাংলাদেশ পুলিশ সিএমপির অধীনে কর্ণফুলী থানায় পুলিশের এসআই হিসেবে যোগ দেয়ার পর থেকে বিভিন্ন জোনে চিহ্নিত অপরাধী,মাদক ব্যবসায়ী, ডাকাত ও সন্ত্রাস দমনের মতো একের পর এক দৃষ্টান্তমূলক কর্মকান্ড দেখিয়ে পুলিশ প্রশাসনে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে যাচ্ছেন সাহসী এই পুলিশ অফিসার।

তার নেতৃত্বে উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন ও মাদক আখড়া খ্যাত ইছানগর এলাকা হতে বেশ মাদক উদ্ধার, সাজাপ্রাপ্ত আসামী ও ওয়ারেন্ট তামিল সহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সক্ষমতা দেখিয়েছে কর্ণফুলী থানা পুলিশ।

এরই প্রেক্ষিতে সিএমপি পুলিশ কমিশনার কতৃক প্রতি মাসের ন্যায় জুন মাসে বিভাগের সেরা এসআই হিসেবে পুরষ্কৃত হন তিনি।

এমন সাহসী পদক্ষেপের জন্য পুলিশ বিভাগে বেষ্ট অফিসার হিসেবে সম্মাননা সনদপত্র গ্রহণ করেছেন এসআই মোঃ আলমগীর হোসেন।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহাবুবর রহমান, পিপিএম এর সভাপতিত্বে মাসিক অপরাধ সভা জুলাই-২০১৮ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভায় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) মাসুদ উল হাসান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) আমেনা বেগম, বিপিএম-সেবা, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) শ্যামল কুমার নাথ, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) হারুন-উর-রশিদ হাযারী, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোঃ আব্দুল ওয়ারীশ, উপ-পুলিশ কমিশনার (পশ্চিম) মোঃ ফারুক উল হক, উপ-পুলিশ কমিশনার (সিএসবি) মোঃ মোখলেছুর রহমান, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-উত্তর) হাসান মোঃ শওকত আলী, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-বন্দর) ফাতিহা ইয়াছমিন, উপ-পুলিশ কমিশনার (পিওএম) মোঃ তারেক আহম্মেদ, র‌্যাব, সিআইডি, পিবিআই, ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, এপিবিএন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর প্রতিনিধি, সকল অতিঃ উপ-পুলিশ কমিশনার, সহকারী পুলিশ কমিশনার ও সকল থানার অফিসার ইনচার্জগণ উপস্থিত ছিলেন।

কর্ণফুলী থানার এসআই মোঃ আলমগীর হোসেন এর
কাছে জানতে চাইলে প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, ভাল কাজের স্বীকৃতি সব সময় আনন্দের। এ কৃতিত্ব আমার একার নয়। থানার অফিসার ইনচার্জ ও দায়িত্বরত সকল পুলিশ ফোর্সদের’।

এতে গ্রাম পুলিশ, কমিউনিটি পুলিশ, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিকসহ সকল স্তরের মানুষের সার্বিক সহযোগীতায় আজকের এ প্রাপ্তি বলে মনে করি করি’।

তিনি সরকারের ঘোষিত মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স যুদ্ধে অব্যাহত সংগ্রাম ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অক্ষুন্ন রাখতে সকলের সহযোগীতা কামনা করেন।

তথ্যমতে, মাসিক অপরাধ সভা জুলাই-২০১৮ইং তে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার, মামলার রহস্য উদঘাটন, আসামী গ্রেফতার ও ভাল কাজের জন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ৭৬ জন পুলিশ সদস্য ও সিভিল স্টাফ’দেরকে নগদ অর্থ ও সম্মাননা সনদ প্রদান করা হয়।

Top