কক্সবাজার শহরে ষ্টেড়িয়াম পাড়া এলাকায় পৌরসভার ড্রেনের উপর দিয়ে ৩ তলা ভবন নির্মাণ; বন্ধ হয়ে গেছে বর্জ্য নিস্কাশনের পথ

38673735_269061443877336_8287921446752092160_n.jpg

আবদুল গফুর,কক্সবাজার শহর :

কক্সবাজার শহরে ষ্টেড়িয়াম পাড়া এলাকায় পৌরসভার ড্রেনে,পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ করে অনুমোদন বিহিন ড্রেন দখল করে অবৈধ ভাবে তিন তলা ভবন নির্মাণ করেছে কক্সবাজার জেলার রামু ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মিন্টন পাল।
যার ফলে পানি নিষ্কাশনে সমস্যা হওয়ায় দুর্গন্ধ ও পরিবেশ দুষণে আশপাশের এলাকাবাসীর পোহাতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ। শহরের মোহাজের পাড়া এলাকার প্রবিণ মুরুব্বী আমির আহাম্মদ জানান বৃহত্তর মোহাজের পাড়ার থেকে ষ্টেড়িয়াম পাড়া এলাকা ও বাহার ছড়া জলিল চত্বর পাশ দিয়ে পৌরসভার নির্মিত ৮ ফুট প্রস্থের পুরোনো ড্রেনটি মিন্টন পালের অবৈধ ভাবে নির্মাণ করা ভবনের পিছন দিক দিয়ে বাঁকখালী নদীর সাথে সংযোগ৤।শহরে বৃহত্তর মোহাজের পাড়া ও ষ্টেড়িয়াম পাড়া জনসাধারণ ড্রেনটি ব্যবহার করতো এ ড্রেন দিয়ে অন্যান্য ড্রেনের বর্জ্য বের হয়ে বাঁকখালী নদীতে গিয়ে পড়তো।
এরই মধ্যে মিন্টন পাল রামু ইউনিয়নের সচিবের পদের জোরে ড্রেনের সামান্য জায়গা রেখে প্রায় ৬ ফুট প্রস্থ ও ৩০ ফুট দৈর্ঘ্য দখল করে প্রথমে প্রাচীর দিয়ে লোকচক্ষুর আড়াল করে। এরপর অবৈধ ৩ তলা ভবন ড্রেনের উপর দিয়ে নির্মাণ করলে বর্জ্য নিস্কাশন বন্ধ হয়ে দুর্গন্ধ ও পরিবেশ দুষণ হতে থাকে।এক পর্যায়ে এলাকাবাসীর বিষয়টি নজরে আসে। ড্রেনটি বর্তমানে অকার্যকর হয়ে দুর্গন্ধে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে।এ ছাড়া পৌরসভার পরিচ্ছন্ন কর্মীরাও কোন কাজ করতে পারছে না বলে এলাকাবাসী দাবী করেন।
স্থানীয়রা বলেন, পৌরসভার সংশ্লিষ্ট কোন কর্মকর্তার সাথে যোগ সাজস না থাকলে ড্রেনের উপর দিয়ে এ ধরণের ভবন নির্মানের সাহস করতে পারতো না।এসব ড্রেন দখলবাজদের হাত থেকে অবৈধ দখলমুক্ত করে ড্রেনটি সংস্কার এবং বর্জ্য নিস্কাশনের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পৌর কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এভাবে পৌরসভার ড্রেন দখল করে ভবন নির্মানের বৈধতা আছে কী না জানার জন্য ভবনের মলিক মিন্টন পাল এর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায় নি।
এদিকে পৌরসভার নির্মিত উক্ত ড্রেনের উপর দিয়ে ভবন নির্মাণের বৈধতা এবং পৌরসভার হাত আছে কী না সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে নাম জানাতে অনিচ্ছুক পৌরসভার একজন কর্মকতা জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই।এ ব্যাপারে উন্নয়নয় কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কর্নেল ফোরকান আহমদ জানান,পৌরসভার ড্রেনের উপর ভবন নির্মাণ আইনত অবৈধ। ভবন নির্মান ও ড্রেন দখলের বিষয়টি আমাদের নজরে আছে,কেউ লিখিত অভিযোগও করলে আমরা খুব শীঘ্রই সরেজমিনে তদন্ত করে দেখবো এবং অবৈধ দখলবাজদের বিরুদ্ধে আইননুগ ব্যবস্থা নেব।

Top