কর্ণফুলী থানায় হঠাৎ বদলির হিড়িক!

tana.png

জে.জাহেদ,চট্টগ্রাম ব্যুরো:
চট্টগ্রাম শহরের প্রবেশদ্বার কর্ণফুলী থানা সিএমপির অধীনে কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এ থানায় ঘন ঘন উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) বদলির ঘটনা ঘটছে।
এ কারণে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনে অস্থিরতা বিরাজ করছে। রুটিন-মাফিক কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটছে। অতীতে এ রকম ঘটনা না ঘটলেও বর্তমানে সরকার যন্ত্রের ইচ্ছায় সম্প্রতি এমনটা ঘটছে বলে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে।
এদিকে তড়িঘড়ি করে একে একে ৫/৬জন এসআই’র বদলি নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের মাঝেও মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে।
এ সুযোগে তৃতীয় কোন পক্ষ যেন প্রতিনিয়ত পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে সাধারণ জনগণের কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা আদায় করতে না পারে সেদিকটিও বিবেচনা রাখা উচিত বলে মনে করছে।
যদিও সরকারি চাকুরিজীবীদের মধ্যে পুলিশ বিভাগ অনেকটা ব্যতিক্রম। এখানে পুলিশের বদলি নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার।
জানা যায়, কর্ণফুলী থানায় পুলিশের চাকুরি অনেকটা নিরাপদ ও ‘লাভজনক’। কথিত রয়েছে, পুলিশ অফিসারদের এখানে যোগদান করতে হলে অনেক তদবির করতে হয়। কিন্তু সম্প্রতি সময়ে থানায় এসে অফিসাররা পুরা উপজেলার মুখ দেখার আগেই বিদায় নিতে হচ্ছে।
এ অবস্থায় ভালো কোন সাব ইন্সপেক্টর কর্ণফুলী থানায় যোগদান করতে রীতিমতো অনীহা প্রকাশ করছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে। কেননা নিজস্ব থানা কম্পাউন্ট না থাকায় আবাসন সমস্যাও প্রকট। আবার কেউ এলেও কম সময়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ বদলি নিয়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দু’একজন অফিসার এ প্রতিবেদকের সাথে বিপরীত মন্তব্যও করেন, কর্ণফুলী থানায় চাকুরিতে নিজস্বতা বজায় রাখা যায়না। এখানে ইনকাম করাতো দূরে থাক। তাছাড়া দাগী আসামীদের গ্রেফতার করলে ধন্যবাদের বদলে তিরষ্কার পেতে হয়। এ অবস্থায় এখানে চাকুরি করা অনেকটা দূরূহ বলে জানান।
বিশ্বস্ত সূত্রমতে, জুলাই এর শেষে ও আগস্টের প্রথম সপ্তাহে প্রায় ৫ জন এসআই সিএমপি কমিশনারের আদেশে বদলি হয়েছে। যারা এখনো অনেকে বেডিংপত্রও নিতে পারেনি। কেহ চলে গেছে আবার কেহ দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে চলে যাওয়ার পথে । পুলিশের অভ্যন্তরীণ এ বদলির তালিকায় রয়েছেন,এসআই রুপন, এসআই বশর, এসআই বেলাল, এসআই সমীর, এসআই মতিন।
থানা সুত্রে জানা যায়, এদের অনেকে এখনো শিক্ষানবীশ পিএসআই,এসআই। যদিও অফিসার ইনচার্জ হিসেবে এখানে থানার ব্যক্তিগত কোন চয়েজ থাকে না।
কর্ণফুলী থানার ওসি (তদন্ত) ইমাম হাসান বলেন, “উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে নিয়োগ-বদলির ঘটনা নিয়মিত ঘটে। এরমধ্যে ৪ জন চলে গেছে আবার নতুন করে ৪ জন নিয়োগ হয়ে এসেছে”।
অপরদিকে জানা যায়, কর্ণফুলী থানায় কর্মরত অফিসারের মধ্যে বন্দর জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার ডিসি’র দিকনির্দেশনায় ও থানা অফিসার ইনচার্জ সৈয়দুল মোস্তফার নেতৃত্বে এসআই মোহাম্মদ হোসাইন ও এসআই আলমগীর হোসেন ইতিমধ্যে মাদক নিয়ন্ত্রণ ও সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতারে বেশ প্রসংশনীয় ভূমিকা রেখেছে। এমনকি সাধারণ জনগণের মাঝে পুলিশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে চলেছেন।

Top