মণিরামপুরের প্রবীন সংবাদপত্র পরিবেশক নিয়ামত আর নেই

received_1826303434122372.jpeg

আব্দুর রহিম রানা,যশোর :
মণিরামপুরের প্রবীন সংবাদপত্র পরিবেশক অতি পরিচিত মুখ সকলের প্রিয় নিয়ামত আর নেই (ইন্না
লিল্লাহে…..রাজেউন)।
মঙ্গলবার সকাল ৮ টার দিকে পৌর এলাকার মহাদেবপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ওই গ্রামের মহররম আলী সরদারের ছেলে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভূগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি ১ ছেলে ও ৪ মেয়ে নাতী-নাতনীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
জানা যায়, মণিরামপুর সংবাদপত্র পরিবেশনকারিদের পুরাধা ছিলেন প্রয়াত নিয়ামত চাচা। তিনি সংবাদপত্র পরিবেশকের পাশাপাশি ছিলেন সংবাদপত্রের এজেন্ট। তিনি দীর্ঘ প্রায় ৫০ বছর ধরে মণিরামপুরে পাঠকের হাতে সংবাদপত্র পরিবেশন করার কাজে নিয়োজিত ছিলেন।
সম্প্রতি বাইসাইকেল চড়ে সংবাদপত্র পরিবেশনের কাজে বাইরে যাবার সময় তিনি দুর্ঘটনায় আহত হন। এতে তার পাসহ কোমর ভেঙ্গে যায়। সম্প্রতি কিছুটা সুস্থ হয়ে নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।
এরপর থেকে তার ছেলে আবু বক্কর সংবাদপত্র পরিবেশন করে আসছেন। সংবাদপত্র এজেন্ট ও মণিরামপুর প্রেসক্লাবের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য একেএম নিছার উদ্দীন খাঁন আজম বলেন,
প্রয়াত নিয়ামত ছিলেন একাধারে এজেন্ট ও সংবাদপত্র পরিবেশনকারি। সংবাদপত্র জগতে তার মতো একজন
দায়িত্ববান লোক পাওয়া দূরহ। তার মৃত্যুতে এ জগতে অপূরনীয় ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।
যশোর সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের মণিরামপুর শাখার সভাপতি হয়রত আলী ও সাধারণ সম্পাদক পরেশ দেবনাথ জানান, নিয়ামত চাচাই তাদের এ জগতে
প্রেরণার উৎস। তিনি হলেন উপজেলার সংবাদপত্র পরিবেশন জগতের পুরাধা। এদিকে সকলের প্রিয় নিয়ামত চাচার মৃত্যুতে মণিরামপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ফারুক আহম্মেদ লিটন ও সম্পাদক মোতাহার হোসেন ও সাবেক সভাপতি অধ্যাপক আব্বাস উদ্দীনসহ প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিক সমাজ মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। একই সাথে মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেছে।
অনুরুপ বিবৃতি দিয়েছেন যশোর সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের মণিরামপুর শাখার সভাপতি হয়রত আলী ও সাধারণ সম্পাদক পরেশ দেবনাথসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। সোমবার বাদ যোহর মরহুমের নামাজে জানাজা শেষে পাবিারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

Top