৭৫ হাজার টাকায় ধর্ষন মামলা রফাদফা

37585434_361556521041182_8552154650915110912_n.jpg

এম. এ নাঈম, পঞ্চগড় প্রতিনিধি:
পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার ২ নং ইউনিয়নেরর বর্মতুল গ্রামের এক চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযাগ উঠছে একই গ্রামের মােঃ সুফিয়ার (৪৫) বিরুদ্ধে।
সুফিয়ার একই গ্রামের সামসুল ইসলামের পুত্র। এই বিষয়ে মামলা করলে ভুক্তভোগীর পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। পরিবারের অভিযাগ, মাঝরাতে সুযাগ বুঝে ঘরে ঢুক তাদের মেয়েকে ধর্ষণ করে অভিযুক্ত সুফিয়ার। কারণ ভিকটিম রাতে একাই এক ঘরে থাকত। ভিকটিম লজ্জায় কাউকে কিছু না বললেও পরে তার নানিকে বিষয়টি জানায়। পরে পরিবারের বাকি সদস্যরা বিষয়টি জানত পারে।
ভিকটিমের বাবা জানায়, স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মিটমাট করে দিতে চায় এলাকার লােকজন। ইউপি চেয়ারম্যানক নিয়ে বসা হলে সেখান আমরা মামলা করতে চায়ছিলাম। পরবর্তীতে শালিশী বৈঠকে ৭৫ হাজার টাকায় রফাদফা ঠিক করা হয় এবং ২৫ হাজার টাকা ইউপি চেয়ারম্যানের হাতে জমাও দেওয়া হয়। ইউপি চেয়ারম্যান ধর্ষনর কথা স্বীকার কর বলন, এটা মিটমাট হয় গেছে। ৭৫ হাজার টাকা দিবে অভিযুক্ত পরিবারে লােকজন এর মধ্য ২৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে যা আমার কাছে জমা আছ।
তেঁতুলিয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুলতানা রাজিয়া বলেন, আমি ধর্ষনের কথা শুনছি কিন্তু টাকা লেনদেন সম্পর্কে আমি ঠিক জানি না।
তেঁতুলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, বিষয়টি সম্পর্ক আমি অবগত নই। যেহেতু মেয়ের পক্ষ থেকে আমাদের কাছে কোন অভিযাগ করা হয় নি।

Top