বাঁশতলা-পেকপাড়া-ঝুমগাও কাঁচা রাস্তার বেহাল দশা, চরম দুর্ভোগ

37905922_1625668537561858_5836641125384847360_n.jpg

এম এ মোতালিব ভুঁইয়া :
দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নে বাশতলা(আননপাড়া) থেকে পেকপাড়া স্কুল হইয়া ঝুমগাও (ইসলামপুর) পর্যন্ত কাঁচা রাস্তার বেহাল অবস্থার জন্য গ্রামের মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। স্কুল-মাদ্রাসা ও কলেজের শিক্ষার্থীসহ প্রায় ৪/৫ হাজার মানুষ প্রতিদিন এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে থাকেন। বর্তমানে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। মোটরসাইকেল, রিস্কা,সিএনজি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।সরজমিন দেখা গেছে, কর্দমাক্ত ও পিচ্ছিল কাঁচা রাস্তাটি বড় বড় গর্ত থাকায় মানুষকে জুতা খুলে পথ চলতে হয়। মাঝে মাঝে মোটরসাইকেল, রিস্কা,সিএনজি যাওয়ার চেষ্টা করলেও সফল হওয়া যায়না,মাঝপথে কষ্ট পেয়ে হয় খানাখন্দে আটকে পড়া যানবাহনগুলোকে পড়তে হয় বিপাকে। ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম জানান, আমার নির্বাচনী ওয়াদা অনুযায়ী আমার ওয়ার্ডের সর্বপ্রথম যে কর্মসিজনের কাজটা করেছিলাম এটা সেই রাস্তা কাজটাও ভাল হয়েছিল এলাকার সকলের প্রশংসা কুড়িয়ে ছিলাম।
আমাদের ভাগ্যটাই ভাল না বর্ষাকালীন সময় গলেই পেক কাদা হয়ে যায়। দোয়া করবেন আমাদের জন্য পাকা করন এর মাধ্যমে যেন ঐ এলাকার জনমানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারি।রাস্তা পাকাকরণ হলে ওই অঞ্চলের মানুষের যাতায়াতের দুর্ভোগ লাঘব হবে।
স্থানীয় মোটরসাইকেল ড্রাইভার জামাল জানান,এই রকম কিছু রাস্তা বর্তমানে এই এলাকার মরনফাঁদে পরিনত হচ্ছে,এই এলাকার যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম মোটর সাইকেল নিয়ে এই এলাকায় যাওয়ার সময় দূর্ঘটনার কবলে পড়ে অনেকের জীবনের ক্ষতি হচ্ছে যদিও কাচাঁ মাটি ভরাটের মাধ্যমে রাস্তাটা বাঁধা হয়েছিল, কিন্তু আমরা মনে করি এসব রাস্তা পাকা করনের কাজ না করা হলে এখান থেকে আমাদের দূর্দশা লাঘবের পথ শেষ হবে না।
পেকপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহিরুল হক জানান, ওই গ্রামের মানুষের ইউনিয়ন সদর,বাজারের সঙ্গে যোগাযোগের মূল রাস্তা হচ্ছে এটি। রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হওয়ায় প্রতিদিনই ঘটে ছোট-বড় দুর্ঘটনা।প্রায় সময় বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রী কাদায় পিছিল খেয়ে পড়ে যায় বই খাতা ভিজে যায়।খুবই দ্রুত রাস্থাটি পাকাকরন প্রয়োজন । বাংলাবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জসিম মাষ্টারের সাথে মোবাইলে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করে কল রিসিভ না করায় মতামত নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Top