রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্টা বার্ষিকী উদযাপন।

IMG_20180706_120221.jpg

আব্দুর রহিম,রাবি প্রতিনিধি:
আজ শুক্রবার (৬ জুলাই) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬৫ তম প্রতিষ্টা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। প্রতিষ্টা বার্ষিকী উপলক্ষে পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ডিপার্টমেন্ট,হল,ইন্সটিটিউট সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে এসে জড়ো হয়।
সকাল ৯টায় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে প্রোগ্রাম শুরু হয়।
এরপরে শান্তির প্রতিক কবুতর,বেলুন,ফেস্টুন উড়ানো হয় এবং বৃক্ষ রোপন করাহয়।
বৃক্ষ রোপন শেষে মাননীয় উপচার্য অধ্যাপক ড.আব্দুস সোবহানের নেতৃত্বে আনন্দ শোভাযাত্রা শুরু হয়।
আনন্দ শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তন, লাইব্রেরী ভবন চত্তর প্রদক্ষিণ করে সিনেট ভবনের সামনে এসে শেষ হয়।
আনন্দ শোভাযাত্রা শেষে প্রতিষ্টা বার্ষিকী উপলক্ষে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুস সোবহান।
মাননীয় উপাচার্য তিনি তার বক্তব্যের শুরুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মাদার বখশের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন এবং উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান।
তিনি তার বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশ যখন সবদিক দিয়ে উন্নত হচ্ছে,বিশ্বের জন্য উন্নয়নের মডেল হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে ঠিক তখনই একটি কুচক্রি মহল বাংলাদেশকে পিছানোর জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে।
কোটা সংস্কারের নামে একটি মহল সাধারন ছাত্রদেরকে ব্যবহার করছে। প্রধানমন্ত্রী যেখানে কোটা বাতিল করার ঘোষনা দিয়েছেন তার পরও তাদেরকে ব্যবহার করে দেশকে অশান্তিপূর্ণ পরিবেশে পরিনত করার চেষ্টা করছে।
এই কোটা সংস্কারের পিছনে শুধু দেশিয় নয় বিদেশি মহলও কাজ করছে।
তিনি আরও বলেন,পৃথিবীর অন্যন্য দেশেও প্রতিষ্টার জন্য যারা অবদান রাখেন তাদেরকে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হয়।
এবং বিরোধীদের দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান তাদেরকে তাড়িয়ে না দিয়ে সহানুভূতি দেখিয়েছেন।
কিন্তু তারাই এখন দেশকে অপ্রীতিকর পরিবেশে পরিনত করছে।
তিনি পরিশেষে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তার বক্তব্য শেষ করেন।
আরও বক্তব্য রাখেন উপউপচার্য অধ্যাপক ড. আনন্দকুমার সাহা। তিনি তার বক্তব্যের মাধ্যমে প্রতিষ্টা বার্ষিকীর আনন্দ শোভাযাত্রার সমাপনী ঘোষনা করেন।

Top