বেরোবিতে ৪ দফা দাবিতে কর্মচারী ইউনিয়নের কর্মবিরতি

news-pic-27.06.18.jpg

জাকির হোসাইন,বেরোবি প্রতিনিধি:
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারীদের পদোন্নতি বা আপগ্রেডেশন নীতিমালা, বকেয়া বেতন প্রদান ও চাকুরি স্থায়ীকরণসহ ৪ দফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি ঘোষণা করেছে কর্মচারী ইউনিয়ন। বুধবার সকাল ৯টা থেকে এই কর্মবিরতি শুরু হয়।

জানা যায়, রোববার দুপুরে তিন দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য রেজিস্ট্রার বরাবর চিঠি দেয় কর্মচারী ইউনিয়ন। চিঠিতে উল্লেখিত দাবিসমূহ ৪৮ ঘন্টার মধ্যে বাস্তবায়ন করা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুমকি দেয়। পরে সোমবার নতুন ১টি দাবি যোগ করে মোট চার দফা দাবি বাস্তবায়নের অনুরোধ করেন তারা। কিন্তু ৪৮ ঘন্টা সময় পার হয়ে গেলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ধরণের আশ^াস না পেয়ে তাঁরা মঙ্গলবার বিকেলে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি ঘোষণা করে। তবে বিশ^বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ, মেডিকেল সেন্টার এবং এ্যাম্বুলেন্স এই কর্মবিরতির আওতামুক্ত থাকবে।
এদিকে, কর্মচারী ইউনিয়ন অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ঘোষণা করলে মঙ্গলবার রাত ৮টার পর উপাচার্যের পিএ(ব্যক্তিগত সহকারী) আবুল কালাম আজাদের মাধ্যমে কর্মচারীদের আপগেড্রেশনের (৩ নম্বর দাবি) আশ^াস দিয়ে সবাইকে ঢাকায় আসতে বলা হয়। আপগ্রেডেশনের জন্য বেশ কয়েকজন রাতেই ঢাকা যাওয়ার প্রস্তুতি নিলেও অধিকাংশই ঢাকায় যেতে আগ্রহ প্রকাশ করেননি।

কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নুর আলম বলেন, “কর্মচারীরা যে খসড়া নীতিমালা জমা দিয়েছে সেই আলোকে আমাদের দাবিসমূহ বাস্তবায়ন করতে হবে। চার দফা দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মবিরতি চলতেই থাকবে।”

কর্মচারী ইউনিয়নের সহ-সভাপতি শাহিন মিয়া বলেন,“বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে একাধিকবার খসড়া নীতিমালা দিয়েও তারা কর্মচারী ইউনিয়নের জন্য আলাদা কোন নীতিমালা বাস্তবায়ন করেনি। আর সুনির্দিষ্ট কোন নীতিমালা না থাকার কারণে বারবার বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে কর্মচারীরা। আমরা চাই ৫৮ জন কর্মচারীর চাকরি স্থায়ীকরণসহ কর্মচারীদের নীতিমালা খুব শীঘ্রই বাস্তবায়ন করা হোক।”

Top