আগামীকাল গাজীপুর সিটিতে ভোটগ্রহণ

IMG_20180625_123621.jpg

মো:তানভীর অাহম্মেদ রনি :
গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অাগামীকাল মঙ্গলবার ২৬ জুন ।সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলবে।

নির্বাচনী প্রচারণার বিধি অনুযায়ী,ভোটগ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা পূর্বে অর্থাৎ ২৪ জুন দিবাগত রাত ১২টার আগেই সকল ধরনের প্রচারণা বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে। রবিববার শেষ মুহূর্তের পর্যন্ত প্রচার প্রচারণা চালিয়েছেন মেয়র, সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

এখন জয় পেতে নানামুখী হিসাব-নিকাশ কষছেন তারা। এদিকে নির্বাচনের শেষ সময়ের প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম গুছিয়ে আনছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

সিটি করপোরেশনের মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর নির্বাচিত করার লক্ষ্যে ভোট দিতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন গাজীপুরবাসী।

সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে সাতজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূল লড়াই হবে নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যে। আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম ও বিএনপির মো. হাসান উদ্দিন সরকার- এ দুই প্রার্থীকে ঘিরেই চলছে যত আলোচনা। পাশাপাশি জাতীয় রাজনীতি ও স্থানীয় উন্নয়ন ইস্যু উঠে এসেছে এ নির্বাচনী প্রচারে।

তফসিল ঘোষণার পর থেকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের প্রচার-প্রচারণায় মুখর হয়ে ওঠে গাজীপুর। ভোটের জনপ্রিয়তার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে সম্ভাব্য সব কৌশল অবলম্বন করছে দল দুটি।

গত ১৫ মে গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণের কথা থাকলেও আইনি জটিলতায় মাঝপথে আটকে যায় গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন।

এ সিটি করপোরেশনে ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬ জন ভোটার রয়েছেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৫ জন ও নারী ভোটার ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১ জন। এ নগরীতে নতুন ভোটার ১ লাখ ১১ হাজার। এ ছাড়া শ্রমিক ভোটার দুই লাখের বেশি। নির্বাচনে নারী, নতুন ও শ্রমিক ভোটাররাই প্রধান ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়াবেন বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির স্থানীয় নেতারা।

সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পর্কে গাজীপুরের পুলিশ সুপার মো. হারুন-অর-রশীদ বলেন, তফসিল ঘোষণার পর থেকে এ পর্যন্ত কোনো প্রকার সহিংসতা গাজীপুরে হয়নি। আশা করি ভোটের দিন ২৬ জুন ও এর আগে-পরে কোনো সহিংসতা হবে না।

এ নির্বাচন উপলক্ষে ইতিমধ্যে পুরো গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পোশাকি সদস্যদের পাশাপাশি বিপুলসংখ্যক সাদা পোশাকের পুলিশ সদস্য নগরীর বিভিন্ন স্থানে দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচন উপলক্ষে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে। আচরণবিধি দেখভালে নির্বাচনী এলাকায় রয়েছেন নির্বাহী ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।

সরজমিন দেখা গেছে, গাজীপুর সিটির বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ তল্লাশি করছে। পুলিশ,র‍্যাব ও বিজিবির সদস্যরা গাড়ি নিয়ে টহল দিচ্ছেন। সন্দেহভাজনদের চেক করা হচ্ছে। প্রচারের শেষ দিন রোববার মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী এবং তাদের সমর্থকদের খণ্ড খণ্ড মিছিলে সৃষ্টি হয়েছে উৎসবমুখর পরিবেশের।

এদিকে ভোটের নিরাপত্তার স্বার্থে রবিবার মধ্যরাত থেকে মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।
আজ মধ্যরাত থেকে সব ধরনের যানবাহন চলাচলের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করা হবে। তবে হাইওয়ে ও জরুরি সেবা দেয়ার গাড়ি এর আওতামুক্ত থাকবে। এর আগে শনিবার মধ্যরাত থেকে বহিরাগতদের গাজীপুর সিটি করপোরেশন এলাকায় অবস্থান নিষিদ্ধ করা হয়।

Top