জগন্নাথপুরে কুশিয়ারার পানির তোড়ে রাস্তা ভেঙ্গে যোগাযোগ বিছিন্ন!

News-Photo-3.jpg

জুয়েল আহমদ,জগন্নাথপুর থেকে::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ ইউনিয়নের বাজারের দক্ষিণপাড়-রৌয়াইল বাজারের রাস্তা গত বৃহ:বার কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। নোয়াগাঁও গ্রামের পাকা রাস্তা পানির তোড়ে ভেঙ্গে যাওয়ায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। হুমকির মুখে পড়েছে কয়েকটি গ্রামের রাস্তা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,উজান থেকে নেমে আসা বন্যার পানি কুশিয়ারা নদী দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় গত বৃহ:বার রাতে নোয়াগাঁও নোয়াপাড়া ছত্তার মিয়ার বাড়ির পাশের রাস্তার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়ে এক সময় পানির তোড়ে রাস্তা ভেঙ্গে যায়।রাস্তা ভাঙ্গা পর কয়েকটি গ্রামের যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে পড়েছে।পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। রৌয়াইল বাজার,বালিশ্রী,আলমপুর,নোয়াগাঁও সহ কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার মানুষের যোগাযোগের একমাত্র রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়া অসহায় হয়ে পড়েছেন।শহর থেকে ঈদ পালন করতে আসা মানুষজন গাড়ী চলাচল না করায় জীবনে ঝুকি নিয়ে নৌকা দিয়ে যাতায়াত করছেন।
রাস্তা ভাঙ্গার সাথে সাথে স্থানীয় মেম্বার মো.বজলু মিয়া বাঁশ দিয়ে আড় তৈরী করে বস্তা দিয়ে পানি আটকানো চেষ্টা করেছেন।পানির তোড় বেশী থাকায় সে চেষ্টা ও ব্যর্থ হয়েছে।এব্যাপারে মেম্বার মো.বজলু মিয়া বলেন,গত বছর এভাবে বালিশ্রী গ্রামের রাস্তা ভেঙ্গে গিয়েছিল আমার পকেটের টাকা খরচ করে মেরামত করি কিন্তু আমার ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা থেকে কোন প্রকার অনুদান দেওয়া হয়নাই।এ ভাঙ্গাতে কোন ভরসায় কাজ করাবো।আমি আমার কতৃর্পক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছি।এখনো পর্যন্ত কোন প্রকার আশ^াস প্রদান করা হয় নাই।
এ ব্যাপারে জগন্নাথপুরে উপজেলা এলজিইডির ইি নিয়ার মো.গোলাম সারোয়ারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,রাস্তার ভাঙ্গার ব্যাপারে আমাকে বলা হয়েছে।এখনতো কাজ করানো মত কোন সুযোগ নাই। আমরা চেষ্টা করছি স্থানীয়ভাবে একটি বরাদ্ধ দিয়ে কাজ করানোর।##

Top