যোগাযোগ বিছিন্ন জায়গায়ও ত্রান পৌঁছে দিলেন পরশুরাম ইউএনও মুরাদ:

35299206_1979957102028117_1291327182202732544_n.jpg

জে.জাহেদ,বিশেষ প্রতিবেদক:

টানা বৃষ্টিতে পাহাড়ী ঢলের পানিতে সৃষ্ট বন্যায় পরশুরাম উপজেলায় চিথলিয়া ইউনিয়নের ৪টি গ্রাম। উপজেলা সদরের সাথে সম্পূর্ণ বিছিন্ন হয়ে পড়েছে জনপদ।

ভয়াবহ বন্যা কবলিত রতনপুর এলাকার শতাধিক পরিবার গত দুইদিন ধরে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বসত ভিটা ও ঘর বাড়ীতে পানি উঠায় তারা মানবেতর জীবন যাপন করছে।

এমন ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় থেকে বন্যার্তদের রক্ষা করতে বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো আহসান উদ্দিন মুরাদ ব্যক্তিগত ভাবে উদ্যোগ নেন।

তিনি চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনকে সাথে নিয়ে নিজে কোমর পরিমান পানি দিয়ে হেটে বন্যা কবলিত স্থানে ত্রান পৌঁছে দিয়েছেন। ইউএনও’র এমন মানবিক কাজে স্থানীয়দের কাছে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন।

পরশুরাম উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো আহসান উদ্দিন মুরাদ জানান, গত দুই দিন ধরে ওই স্থানে লোকজনের কাছে কোন ভাবে পৌছানো সম্ভব হয়নি বৃহস্পতিবার তিনি নিজে কাপড় ভিজিয়ে রতন পুর গ্রামে ঘরে ঘরে গিয়ে ত্রান পৌছে দিয়েছেন।

তিনি আরো জানান, উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগের জন্য ওই বন্যা কবলিত মানুষের জন্য দুটি নৌকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শুক্রবার থেকে ওই স্থানে নৌকার মাধ্যমে যাতায়াত করবে। এছাড়াও বৃহস্পতিবার ওই এলাকার বন্যার্তদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরন করা হয়েছে। ওই সব বন্যা দুর্গ্যত এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন রয়েছে।

এছাড়াও রতনপুর,দুর্পাপর, উপজেলা সদরের সাথে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন জানান, ইউএনও কাপড় ভিজিয়ে পানি দিয়ে প্রায় আধা কিলোমিটার হেটে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থদের বাড়িতে গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। যা আমাদের উপজেলায় প্রথম ইতিহাসে।

তথ্যমতে, পরশুরামে মুহুরী নদীর ৬টি স্থানে বেড়িবাধে ভাঙ্গনে ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়। ফলে লাখো মানুষ পানি বন্দি বলে জানা যায়।

Top