একজন তরুণ সংগঠক এর কথা

received_422010084934196.jpeg

বরিশাল ব্লাড ডোনার্স ক্লাব(বিবিডিসি)
Barisal Blood Donors Club(BBDC)
কিছু একটা করবো যা সবার উপকারে লাগে,কিন্তু কি করা যায়,কিছুই মন মত হয়না।
সাল ★★★২০১২, ৩১ জানুয়ারি★★★
করার মত পেয়ে গেলাম কিছু একটা, সেটা হলো মানুষের রক্তের প্রয়োজনে যেনো সাহায্য করতে পারি এমন কোনো ব্যবস্থা করা যায়। কিন্তু কিভাবে? একটা ক্লাব করা যায় যেখানে সব মানুষ থাকবে রক্তদাতা আর কেউ খুঁজলে এখানে এলেই পাওয়া যাবে। ফেসবুক তখনো বেশ ভালোরকমই জাকিয়ে বসেছে সবার মাথায়। গ্রুপের ব্যবহার ফান আর ফাজলামিতেই মাত্র এসেছে। একটা ক্লাব করতে তো অনেক কিছু লাগে, তার আগে শুরুটা ভার্চুয়ালভাবেই করে ফেলি, কাজও হবে শুরুও হবে এমন ভাবনা থেকে সেদিন ৩১ জানুয়ারি খুলে ফেলি ফেসবুক গ্রুপ যার নাম Barisal Blood donors Club । আর সাথে যুক্ত করে দেই কয়েকশত মেম্বার। ঘটনাবিহীন যাত্রা শুরু করার ২-৩ দিনেই মানুষ রক্ত চেয়ে পোস্ট আর পোস্ট দেখে সাড়া দিয়ে রক্তদান, মানেই ঘটনা শুরু…. অভাবনীয় সাড়া পেয়ে জোড় কদমে চলা শুরু হলো স্বপ্নের কিছু করা। কাজ শুরু হলো বাস্তবেও, চাহিদা জানিয়ে পোস্ট হয় ফেসবুকে খোজাখুজি শুরু হয় বাস্তবে। এভাবেই প্রথমে একজন তারপর দুজন তারপর তিনজন আস্তে আস্তে বাড়তে লাগলো খুঁজে দেবার মানুষের সংখ্যা। প্রথম ভাবতাম এসব করে বুঝি আমি বা আমরা নিজেদের অন্য লেভেলে নিয়ে যাচ্ছি, হয়ে যাচ্ছি হিরো। ভুল ভাবতাম। একদিন বুঝে নিলাম এটা তো একজন মানুষ হিসেবে আমার দায়িত্ব। এরপর থেকে কাজ করা শুরু অন্যভাবে। দায়িত্ব পালনের জন্য,দায়িত্ব বুঝিয়ে দেবার জন্য,গছিয়ে দেবার জন্য। আস্তে আস্তে চাহিদা বাড়তে থাকে কে কিভাবে কার মাধ্যমে নাম্বার জোগাড় করে কল দিচ্ছে বলতে পারতাম না। কবে যে বছর হলো কবে পেরিয়ে গেলো কিছুই মনে রাখার মত অবস্থা ছিলোনা। কারন, চাহিদা আর যোগান দুটোর পার্থক্য। শুরু হল চাহিদা মেটাবার জন্য অনানুষ্ঠানিক ক্যাম্পেইন।
“রক্তদানে নেই ভয়
মানবতার হোক জয়।”
ইতিমধ্যে আমাদের প্রাপ্তি প্রায় ৫০ জন সার্বক্ষণিক দায়িত্ববান মানুষ, যারা সত্যিই মানুষ। আজ যখন এই লেখা লিখছি পাঁচটি বছর পার হয়ে গেলো তখন। ইতিমধ্যে একবার এক মুহূর্তের জন্যেও মনে হয়নি কতদিন হল? কবে থেকে শুরু? কিভাবেই যেনো এবার সামনে চলে এলো।
না আমরা আলোচনা অনুষ্ঠান,পার্টি পিকনিক ইত্যাদি করতে যাচ্ছিনা তাই দাওয়াত দিতে পারলাম না আপনাকে/
আপনাদেরকে,দুঃখিত।
এত টাকা বা পাবো কই? কিছু টাকা থাকলে নাহয় মেডিকেল গিয়ে আরেকটু বেশি কাজে লাগা যাবে অসহায়ের।
গর্ব করে না,দুঃখ করে বলছি আমাদের এত বেশি সামর্থ্য নাই তাই।
আজ খুব শ্রদ্ধাভরে স্মরন করছি যারা শুরু থেকে সাথে ছিলো পরে থাকতে পারেনি,এখনো আছে বা সাথে না থেকেও হৃদয়ের অন্তস্থলে যায়গা রেখে দিয়েছে তাদেরকে।
শ্রদ্ধা তাদের প্রতি যারা আমাদের প্রতিটি কাজে সাহায্য করেছেন।
শ্রদ্ধা প্রতিটি মানবতা বিষয়ক কাজ করা ক্লাব/সংগঠনের সদস্যদের প্রতি।
সর্বশেষ বিনীত শ্রদ্ধা আপনাদের যারা নিয়মিত রক্তদান করে বিলিয়ে যাচ্ছেন মানবতা।
আর আমাদের স্বেচ্ছাসেবকদের কথা বলার ধৃষ্টতা আমার নাই কারন আসার আগেই যে সবাই তওবা পড়ে আসছ কখনো স্বার্থের জন্য কাজ করবানা নিজেকে জাহির করবানা, তোমরা তো সাধারন না।
তবে এত্ত এত্ত ভালবাসা নিয়ে কাজ করার জন্য আল্লাহ তোমাদের/আপনাদের অবশ্যই প্রতিদান দেবেন।
আল্লাহ তায়ালা সকলকে সুস্থ ও সুন্দর জীবন দান করুন।
# যা_কিছু_ভালো
# BBDC

আওলাদ খান
প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি
বরিশাল ব্লাড ডোনারস ক্লাব(বিবিডিসি)

Top