সাইকেল, রিক্সা ও ভ্যানের হাট

IMG_20180602_150101.jpg

এফ আর রাসেল, রাজশাহী :
পরিবেশ-বান্ধব যানবাহন হিসেবে পরিচিত সাইকেল রিক্সা এবং ভ্যান । একসময় বেশ মর্যাদা পেতো ঐতিহাসিক এই যানবাহনগুলো । নতুন-পুরাতন, ছোট-বড় সব ধরনের সাইকেল, রিক্সা ও ভ্যান পাওয়া পাওয়া যায় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত মাসকাটাদিঘি এলাকায় গড়ে ওঠা সাইকেলের দোকানগুলোতে । স্থানীয়রা এগুলোকে সাইকেল হাট বলেন । রাজশাহী শহরের প্রবেশপথে বিশ্বরোডের দুইপার্শে গড়ে উঠেছে এইসব হাটগুলো । চায়না ফিনিক্স, হিরো, রেঞ্জার, বাংলা, রেসার, আধুনিক বাইসাইকেল প্রভৃতি সাইকেল ক্রয়-বিক্রয় করা হয় হাটগুলোতে । সাদা, কালো, লাল, নীল, সবুজ, হলুদ প্রভৃতি বিভিন্ন রঙের সাইকেল পাওয়া যায় সাইকেল হাটগুলোতে । দাম ২০০০-৭০০০ টাকার মধ্যে । একটি হাটের মালিক থাকেন ১ জন এবং ৫-৭ জন ব্যবসায়ী কেনাবেচা করেন । সাইকেল ছাড়া রিক্সা ও ভ্যান পাওয়া যায় ৩০০০-৭০০০ টাকার মধ্যে । বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষজন আসেন তাদের পছন্দের সাইকেল, রিক্সা ও ভ্যান ক্রয়-বিক্রয় করতে । খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মোঃ জসীমউদ্দিন মণ্ডল নামে একজন ব্যক্তি চালু করেছিলেন এই সাইকেল, রিক্সা ও ভ্যানের হাট । তখন একটিমাত্র হাটই ছিল ঐ এলাকায়। আর সেটি ছিলো কাটাখালী পৌরসভার অন্তর্গত দেওয়ানপাড়া মোড়ের পূর্বপার্শে । বর্তমানে এই এলাকায় ৫ টি হাট চালু রয়েছে । এতে অনেকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে । সাইকেল, রিক্সা, ও ভ্যান ক্রয়-বিক্রয় এবং মেরামত করে তারা জীবিকা নির্বাহ করেন । ব্যবসায়ীগণ নতুন ও পুরাতন সাইকেল, রিক্সা ও ভ্যান ক্রয় করে কোনো ত্রুটি পাওয়া গেলে তা মেরামত করে ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার করে বিক্রি করেন । প্রথমে সপ্তাহে দুইদিন শুক্রবার এবং সোমবার কেনাবেচা হতো হাটগুলোতে কিন্ত বর্তমানে প্রতিদিনই ( শুধু দুই ঈদের দিন বাদে ) সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কেনাবেচা হয় ।

Top