রামুতে ব্যবসায়ী সালেক এর বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও বিবৃতি

download-3-6.jpg

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :

কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার কলঘর বাজারস্থ চাকমারকুল ইউনিয়নের বাসিন্দা শাকের কোম্পানির সুযোগ্য সন্তান সালেককে নিয়ে অনলাইন সহ কক্সবাজার জেলা থেকে প্রকাশিত দৈনিক কয়েকটি পত্রিকায় মাদকের সাথে সংশ্লিষ্ট ও জড়িত আছে এমন সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। উক্ত সংবাদের বিরোদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন রামু উপজেলার চাকমারকুল ইউনিয়নের কলঘরের সাধারণ জনগণ। প্রধানমন্ত্রীর ও স্বররাষ্টমন্ত্রীর নির্দেশে বাংলাদেশ থেকে চিরতরে মাদক বন্ধ করার জন্য অভিযানে নেমেছে র‌্যাব, পুলিশ সহ আইনশৃংখলা বাহিনীর লোকজন। এতে করে বাংলাদেশের লোকজন তথা কক্সবাজার জেলা জনসাধারণেরা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছে বর্তমান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তথা বাংলাদেশে আওয়ামীলীগ সরকারকে। যে মাদকের কারণে দিন দিন যুব সমাজ ধ্বংশ হয়ে যাচ্ছে। যুবকেরা মাদক আসক্তির কারণে প্রতি নিয়ত, প্রতিটি মুহুর্তে বিভিন্ন এলাকায় অপ্রীতিকার ঘটনা ঘটাচ্ছে যথা খুন খারাবি, হত্যা, রাহাজানি, সন্ত্রাসী, অপহরণ, ধর্ষন সহ জগন্যতম অপরাধে জড়িয়ে যাচ্ছে। তাই যদি বাংলাদেশকে মাদক মুক্ত করা হয় শান্তিও নিশ্চিত হবে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম। দেশকে মাদক মুক্ত করতে গিয়ে কিছু নিরীহ লোকজন মাদকের মাদকের সাথে জড়িত বলে ফেঁসে যাচ্ছে। এমনকি যেখানে কোন বিন্দু পরিমাণের সত্যতা নেই। রামু উপজেলার কলঘর বাজারস্থ চাকমারকুল ইউনিয়নের বাসিন্দা শাকের কোম্পানির সুযোগ্য সন্তান সালেককে নিয়ে যে মিথ্যা বনোয়াট সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে বাস্তবে তার কোন সত্যতা নেই। আসলে এটি তাদের পারিবারিক ও ব্যবসায়িক শত্রুতামির জেরে তার বাবা শাকের কোম্পানীকে বড় ধরনের ক্ষতি সহ অপ্রীতিকর কোন নতুন ঘটনা জন্ম দেওয়ার জন্য এসমস্ত বানোয়াট মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে যাচ্ছে কিছু অসৎ কুচক্রি মহল। জানা যায়, শাকের কোম্পানীর পিতা মৃত মোঃ কাশেম একজন জমিদার। তাদের রামুতে বিভিন্ন জায়গায় একাধিক সম্পত্তি রয়েছে। শালেকের পিতা শাকের কোম্পানী প্রায় যুগের পর যুগ প্রবাসী ছিলেন। এবং তার ভাইয়েরা প্রবাসে জীবন-যাপন করে হালাল পথে রোজি রোজগার করে অনেক অর্থ সম্পদ করেন। শালেকের পিতা সহ তার ভাইয়ের রামুতে একাধিক সম্পদ সহ অনেক জায়গা জমি রয়েছে। তার পিতা থেকে শুরু করে আত্মীয় স্বজনের নামে স্থানীয় রামু থানা সহ কক্সবাজার জেলায় কোথায় মাদককে জড়িয়ে কোন মামলা মোকাদ্দমা এখনো হয়নি। কারণ তারা হালাল পথে রোজী রোজগারের জন্য জীবন যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন। চাকমারকুল ইউনিয়নের মিয়াজী পাড়ার ইউপি সদস্য বেলাল উদ্দিন জানান, শাকের কোম্পানির ছেলে শালেক কে ছোটবেলা থেকে দেখেছি, শুনেছি। সে তার পিতার একমাত্র ছেলে। তার পিতা তাকে মাদক সহ কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা, সমাজ বিরোধী, দেশ বিরোধী রাষ্ট্র বিরোধী সহ কোথাও যেন তার ছেলে জড়িয়ে না পড়েন সাথে সাথে তাদের হালাল পথে অর্জন করা বিভিন্ন জায়গায় তাদের একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। খুনিয়া পালং এ রাইয়ান ব্রিক ফিল্ড আর.এম যেটি শালেক পরিচালনা করে থাকেন। রামু তেচ্ছিপুল এলাকায় অন্য আরেকটি ব্রিক ফিল্ড রয়েছে যেটি এন.এস নামে পরিচিত। সেটিও শালেক দেখাশুনা করেন। রামু চা বাগান এলাকায় শাকের কোম্পানী মার্কেট হিসাবে পরিচিত একটি চার তলা ভবনও রয়েছে। এছাড়াও ব্রিক ফিল্ড এ ব্যবসার জন্য এসকেভেটর ও কয়েকটি ফিকআপ/ডাম্পার রয়েছে। তাছাড়াও আরও রামু এলাকায় আরও কয়েকটি পোল্ট্রি ফার্ম রয়েছে। যানবাহনের মধ্যে ট্রাক, নোহা, ও কয়েকটি মাইক্রো বাস রয়েছে যেগুলো শালেক দেখাশুনা করেন। বর্তমানে গত কিছুদিন পূর্বে ওমরাহ হজ্ব এর উদ্দেশ্যে সৌদি আরবে পাড়ি জমান শালেকের পিতা-মাত দুই জন। শালেক কে ব্যবসায়ের সহযোগীতা করার জন্য তার পিতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে একাধিক কর্মচারী ও ম্যানেজার রয়েছেন। শালেক নিয়ে অযথা হয়রানি করার জন্য যে উদ্দেশ্য প্রণোদিত মাদক পাচারকারী হিসাবে যে নিউজ পরিবেশন করা হয়েছে এর প্রেক্ষাপটে তার এলাকার সাধারণ জনগনের মধ্যে ক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। এমনকি রামু কলঘর বাসীর একাধিক জনগণ আরও জানান, শাকের কোম্পানীর একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে যেটি তার বাপ-দাদার অর্জিত সম্পদ থেকে তারা বর্তমানে মালিক হয়েছেন। সেটির একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে শালেক দেখাশুনা করে থাকেন। আমরা জীবনেও শালেক কোন ধরনের মাদকে আসক্ত এবং এলাকার কোন ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপে তাকে দেখা যায়নি। আমরা তার ব্যাপারে বর্তমান সরকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বররাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন সহ আইনশৃংখলা বাহিনীর দৃড় আকুল আবেদন জানাচ্ছি যেন বাংলাদেশ থেকে মাদক নিমূল করতে গিয়ে সাধারণ নিরীহ লোকজনদেরকে হয়রানি করা না হয়। কারণ বাংলাদেশের জনগণ আওয়ামীলীগ সরকারকে বিশ্বাস করে, ভালবাসে। আগামী দিনেও আওয়ামীলীগ সরকারকে চায় বাংলাদেশের জনগণ তথা কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার কলঘর বাসী।

————–
দিদারুল আলম (জিসান),কক্সবাজার।

Top