বান্দরবান জেলাধীন অাজিজনগর চিউনীপাড়ায় মিলছে মাদক-বেড়েছে অপরাধ,বিপদগামী হচ্ছে যুবসমাজ।

IMG_20180530_142037.jpg

আরিফুল ইসলাম,লামা(বান্দরবান)প্রতিনিধি:
মাদকের ব্যবসা এখন শহরে নয়,গ্রাম পেরিয়ে পাড়া পর্যায়েও ছড়িয়ে পড়েছে অাশংকাজনক হারে।
বান্দরবান পার্বত্য জেলাধীন লামা উপজেলার অাজিজনগর ইউনিয়নের চিউনীপাড়া ও তার পার্শ্ববর্তী কয়েকটিপাড়া মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবিদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। যার দরুন বিপদগামী হচ্ছে যুবক,ছাত্র এমন কি প্রবীণ সমাজও।
নেশার টাকা জোগাড় করতে মরিয়া হয়ে উঠতেই বেড়েছে অপরাধ প্রবণতা ও নারী নির্যাতন।
কারন এখানকার অধিকাংশ মানুষ বেকার, স্ত্রীর পরিশ্রমের টাকা দিয়ে নেশা করে টাকা না মিললে চলে নরকীয় নির্যাতন। তাই অজানা অাশংকায় দিনযাপন করছেন সচেতন অভিভাবকরা। কারন টাকা দিলেই হাতের নাগালে মিলছে মদ,গাজা,হিরোইন এমন কি মরণব্যাধি ইয়াবাও।

এলাকাবাসির অভিযোগ ৬নং ওয়ার্ড নিবাসী মৃত অাক্তার অালীর ছেলে অাব্দুস সোবহান (৬০) ও তার ছেলে সোলেমান বাজারের চা দোকানদার জসিম উদ্দীন জসু (৩৫) এসব মাদক বিভিন্ন জায়গা থেকে এনে দোকানে ও বাড়ীতে বিক্রি করে অাসছে দীর্ঘদিন ধরে।
তাদের পরিবার ক্ষমতাশালী হওয়ায় ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা। সাম্প্রতিক সময়ে লক্ষ্য করা গেছে এসব মাদকের করালগ্রাসে অনেক সম্ভ্রান্ত পরিবারের মেধাবী ও শিক্ষিত সন্তান বিপদগামী হয়ে সর্বশান্ত হয়েছে।
গতকাল সন্ধ্যায় এলাকাবাসি অাব্দুস সোবহানকে গাজা বিক্রির সময় ধাওয়া করলে ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ে গাজা ফেলে পালিয়ে যায়। এ নিয়ে চিউনীপাড়াবাসি মাদকসম্রাট সোবহানের বিরুদ্ধে ফুসে উঠেছে।

এ ব্যাপারে ৬নং ওয়ার্ড়ের ইউ,পি সদস্য এম ডি রোকনের সাথে অালাপকালে তিনি জানান,সোবহানের বিষয়টা বেশ কয়েকজনের নিকট শুনেছি। চেয়ারম্যান ও প্রশাসনের সহযোগিতায় অচিরেই ব্যবস্হা নেয়া হবে।
অভিযুক্ত অাব্দুস সোবহানের ছেলে জসিম উদ্দীন জসুর কাছ থেকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সে সম্প্রতি ঘঠে যাওয়া গাজা বিক্রির বিষয়টি স্বীকার করে অন্যসব প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান।

উল্লেখ্য যে বিগত ১৭ মে অাজিজনগর ইউ পি চেয়ারম্যান মোঃ জসিম উদ্দীন কোম্পানীর সহযোগিতায় ও অাজিজনগর পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ তোফাজ্জল হোসেনের দুরদর্শিতায় অাজিজনগরের কুখ্যাত মাদকসম্রাট মৃত অাব্দুস সাত্তারের পুত্র বেলাল উদ্দীন মধুকে গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে সে মাদক অাইনের মামলায় জেলে রয়েছে।

বর্তমান সরকার ও প্রশাসনের মাদক বিরোধীযুদ্ধে এদের গ্রেপ্তারপূর্বক যথাযথ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসি।

Top