প্যান্ডেলের কাজ সম্পুর্ন হলেও পুলিশি বাধায় নিদিষ্ট স্থানে ইফতার মাহফিল করতে পারছেনা গুইমারা বিএনপি

received_2075030262770772.jpeg

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:
খাগড়াছড়ির গুইমারায় বিএনপির পূর্ব নির্ধারিত ইফতার মাহফিলে পদে পদে বাঁধাসহ হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। মৌখিক অনুমতি নেওয়ার পরও দফায় দফায় হয়রানী নিয়ে চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে।

৩০ মে বুধবার কাশেম মার্কেটের পশ্চিম পার্শে দোকান গলির ভিতরে গুইমারা উপজেলা বিএনপি ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। ইতিপূর্বে খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার ও গুইমারা থানার অফিসার ইনসার্স মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিনের মোখিক অনুমিত নিয়ে গুইমারা উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ ইউসুফ ইফতার মাহফিলের প্যান্ডেল তৈরির কাজ শুরু করে।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেল থেকে আজ প্যান্ড্যালের কাজ সম্পুর্ন হলেও বুধবার সকাল ১০টায় হঠাৎ পুলিশ পূর্বের মোখিক অনুমিতর স্থানে বাঁধা প্রদান করে ইফতার মাহফিল দলীয় অফিসে করার জন্য মোখিক নির্দেশ দেয়।
পরে দলিয় অফিসে ৫০ জনের অধিক লোকজন বসার স্থান না থাকায় দলীয় অফিসে ইফতার মাহফিল করা সম্ভব না হওয়া এবং রাস্তায় যানবাহন সৃষ্টি, নানা জটিলতার এলাকাবাসীর দাবিতে গুইমারা জামে মসজিদে করার প্রস্তাব রাখলে এতে মসজিদ কমিটিত সাধারণ সম্পাদক কাজী মফিজুল আলম রাজি হন।

এক পর্যায়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামীলীগ জাহাঙ্গীর আলম অনিহা প্রকাশ করলেও পরে মসজিদ প্রাঙ্গণে মিলাদ ও ইফতার মাহফিলের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ বড়ুয়ার সাথে দফায় দফায় যোগাযোগ করলে মসজিদ অথবা দাখিল মাদ্রাসায় করার পক্ষে সম্মতি দেন তিনি।

এক পর্যায়ে সকলের সম্মতিতে তা মসজিদ মাঠে করার সিধান্ত হয়। এ বিষয়ে পবিত্র রমজান মাসে ইফতার মাহফিলের বিষয় নিয়েও বাঁধার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা। সকলকে রমজানের পবিত্র এ মাসে রহমত,মাগফিরাত ও নাযাত,মাগফেরাত এর মাসে সকল প্রতিহিংসা ভূলে ধর্মের প্রতি লক্ষ রেখে সব ধরণের হিংসা থেকে রিবত থাকার অনুরোধ জানান নেতৃবৃন্দরা।

Top