তেঁতুলিয়ার বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর রক্ষায় সরকারের সুদৃষ্টি ও হস্তক্ষেপ কামনা করছে সাধারণ মানুষ

05-2-792x445.jpg
মু: আবু নঈম,পঞ্চগড় প্রতিনিধি:
দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা স্থল বন্দর অচল করে দিতে চলছে সুক্ষ্ম ষরযন্ত্র। কোন রকম টেন্ডার ছাড়াই গোপনে একটি প্রতিষ্ঠানকে শ্রমিক নিয়োগ ও লোড – আনলোডিং এর দায়িত্ব্য দেয়া আর সেই সাথে লোডিং খরচ আগের তুলনায় ৭০ টাকা বাড়িয়ে ১০৪ টাকা করে নতুন প্রঙ্গাপন প্রকাশ করায় চলছে আমদানি কারক সহ শ্রমিক অসন্তোষ।। বাড়তি খরচের কারনে আমদানিকারকরা গত তিন দিনে নেপাল ও ভুটান থেকে আমদানিকৃত পাথর আনলোড না করায় ইয়ার্ড এর ভেতর আটকে আছে শত শত পাথর বোঝাই ট্রাক। যদিও বৃহস্পতিবার আমদানিকারক ও বন্দর কতৃপক্ষের কয়েক ঘন্টার আলোচনায় সাময়িক ভাবে আনলোড কার্যক্রম চালু হয়েছে, কিন্তু তা অল্প সময়ের জন্য বলে ধারনা করছে অনেকেই। এছাড়াও নিয়োগ প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান টি স্থানীয় ইউ-পি চেয়ার ম্যান কুদরত-ই-ক্ষুদা মিলন এর যোগসাজসে বিপুল অর্থের বিনিময়ে শ্রমিক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করায় সাধারন শ্রমিকরা হতাশায় ক্ষোভ প্রকাশ করছে। শ্রমিকরা জানায়, জন প্রতি এক লক্ষ টাকা আদায় করছে চেয়ার ম্যান। আমরা এত টাকা কোথা থেকে দেব? আর দিতে না পারলে অন্য এলাকার লোক নিয়োগ দেয়া হবে টাকার বিনিময়ে। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের সঠিক জবাব দিতে পারেন নি বন্দরের ম্যানেজার আব্দুস সোবহান। এমন কি টেন্ডারের কপিও দেখাতে পারেননি এই কর্মকর্তা। বার বার ক্যামেরার চোখ এড়িয়ে যান তিনি। ব্যবসায়ি নেতারা বন্দর কতৃপক্ষের সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সাময়িক ভাবে তা মেনে নিলেও এর স্থায়ি সমাধানের পথ কোথায়? কি হবে বন্দরের ভবিষ্যৎ? এমনি প্রশ্ন সাধারন মানুষের মনে।
প্রশ্ন যাই হোক, বন্দরটি বাচাতে এগিয়ে আসতে হবে সবাইকে। দুষ্টচক্রের দৌরাত্ব্য বন্ধ করে সকল অনিয়ম-দুর্নীতির মুল হোতাদের খুজে বের করে দেশের অন্যতম সম্ভাবনাময়ি বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর টি বাচাতে ও আরো গতিশীল করতে সরকার সহ সকলের সুদৃষ্টি ও হস্তক্ষেপ কামনা করছে।
Top