ময়লা আবর্জনার স্তুপ ও ব্যানার-ফেস্টুনে ঢেকে গেছে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের স্মৃতিস্তম্ভ

Noakhali-Birshreshtha-Ruhul-Amin-Monument-3.jpg

এ.এস.এম.নাসিম,নোয়াখালী প্রতিনিধি:

একদিকে ময়লা আবর্জনার স্তুপ অন্যদিকে রাজনৈতিক দলগুলো সারা বছর বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপলক্ষে ব্যানার-ফেস্টুন ও পোস্টারে ঢেকে গেছে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের স্মৃতিরক্ষায় একমাত্র বেগমগঞ্জের চৌরাস্তার স্মৃতিস্তম্ভটি। বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চরম অবহেলায় সাধারন জনগনসহ মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

বারবার বিভিন্ন পত্রিকায় বিষয়টি শিরোনাম হলেও তার জন্মদিন ও মৃত্যু বার্ষিকী ছাড়া বাকি সব সময় ময়লা আবর্জনা ও ব্যানার-ফেস্টুনে ঢেকে থাকে এ স্মৃতিস্তম্ভটি।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল হোসেন বাঙ্গালী জানান, আমি বার বার অনুরোধ করেছি এই স্মৃতিস্তম্ভ থেকে ময়লা আবর্জনা পরিস্কার ও ব্যানার-ফেস্টুনে যেন না লাগায়। কিন্তু অনেক বার বলার পরেও পৌরসভা তা সঠিকভাবে রক্ষনাবেক্ষন করছেনা।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের স্মৃতিরক্ষায় ২০১২ সালের ২০ এপ্রিল বেগমগঞ্জ চৌরাস্তায় একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে নোয়াখালীতে ঢোকার মুখে সবাই যেন প্রথমেই বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের স্মৃতিস্তম্ভটি দেখতে পান, সেজন্য বেগমগঞ্জ চৌরাস্তা বেছে নেয়া হয়।

এটা রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ছিল চৌমুহনী পৌরসভা কর্তৃপক্ষের। পৌরসভা কর্তৃপক্ষ স্মৃতিস্তম্ভ রক্ষায় তদারকির কোনো ভূমিকা তো পালন করেনি বরং স্মৃতিস্তম্ভের সঙ্গে নির্মিত পানির ফোয়ারাটি খুলে নিয়ে যায়, স্মৃতিস্তম্ভের সৌন্দয্য বর্ধনের জন্য চারটি বক ছিলো তাও এখন নেই।

এ ব্যাপারে চৌমুহনী পৌরসভার সচিব কাইয়ুম উদ্দিন মুঠোফোনে বলেন,স্মৃতিস্তম্ভে কোন ময়লা আবর্জনা ও ব্যানার-ফেস্টুন-পোস্টার নেই,আমরা নিয়মিত পরিস্কার করি।

Top