দোয়ারাবাজার- বড়কাপন সড়কের বেহাল দশা,দেখার কেউ নেই!

received_1527860830675963.jpeg

এম এ মোতালিব ভুঁইয়া ::
দোয়ারাবাজার- বড়কাপন একটি ব্যস্ততম সড়ক হিসেবে পরিচিত।দোয়ারাবাজার-ছাতক দু’উপজেলার জনসাধারণের একমাত্র যাতায়াতের রাস্তা এটি। গত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে ব্রিজসহ সড়কটি পাকাকরণ করা হয়। কিন্তু এরপর থেকে আর কোন কাজ না করায় গোটা সড়ক যেন চলাচলের ক্ষেত্রে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই সড়কের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্ঠ গভীর গর্তগুলোতে পানি জমে গোটা সড়ক যেন হাজারো মিনি নদী-নালায় পরিণত হয়। এতে গাড়ি চলাচলের সময় এসব এক থেকে দেড় ফুট গভীর গর্তে গাড়ি পড়ে যাত্রিদের মারাত্মক দূর্ঘটনার শিকার হতে হয়। কিন্তু বছরের পর বছর এসব সড়কে কাজ না করলেও দলীয় নেতা, পাতি নেতা, এমনকি সাধারণ মানুষ রাস্তা সংস্কারের দাবিতে সর্বদাই সোচ্ছার আন্দোলন সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। এসড়কে প্রত্যহ বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার সাধারণ মানুষ চলাচল করে থাকেন। কিন্তু গাড়ি চলার সময় খানা-খন্দকের নোংরা পানিতে কাপড় ভিজে মারাত্মক বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে পড়েন তারা। এলাকাবাসি জানান, এসড়কে দোয়ারাবাজার -ছাতক উপজেলার প্রায় ৪০থেকে ৫০টি গ্রামের লোকজন চলাচল করে থাকেন। এতে সিএনজি-ফোরস্টোক, অটো-টেম্পু, অটো-রিকশা, লেগুনা ও কার-লাইটেসের চালকরা ভাঙ্গন কবলিত এসড়কে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রী নিয়ে চলাচল করছেন। ব্যবসায়ি জফর আলী, সেলিম আহমদ, আব্দুস সাত্তার ও ইলিয়াছ আলীসহ অনেকে বলেন, জনপ্রতিনিধিদের কাছে অনেক অনুনয়-বিনয়ের পরও রাস্তার সংস্কার করা হয়নি। কিন্তু তারা তাদের দলীয় নেতাকর্মিদের মোটাতাজা করণে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। তবে সব চেয়ে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন মালামাল পরিবহনের ক্ষেত্রে দোয়ারাবাজারের গোটা ব্যবসায়ি মহল। জানা গেছে, বিএনপি সরকারের আমলে সাবেক এমপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন এ সড়কটি ব্রিজসহ পাকাকরণের কাজ সম্পন্ন করেন। কিন্তু এখন বড়কাপন পয়েন্ট এলাকাসহ গোটা সড়কে গভীর গর্ত ভাঙ্গন সৃষ্টি হওয়ায় এলাকাবাসি এব্যাপারে সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

Top