নীলফামারীতে কালশৈাখী ঝড় ও শীলা বৃষ্টিতে ৮ জনের প্রানহানী

IMG_20180512_004929.jpg

ডিমলা(নীলফামারী)ঃ
নীলফামারীর ডিমলা ডোমার জলঢাকায় প্রচন্ড বেগে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে নীলফামারীর তিনটি উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম লন্ডভন্ড হয়েছে। গাছ ও ঘর চাঁপায় শিশু সহ এ পর্যন্ত ৮ জন নিহত হবার খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৯ হতে আধা ঘন্টাব্যাপী পর্যন্ত চলা এই ঝড়ে উঠতি বোরো ধান, ভুট্টা,বাদাম ও মরিচ ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া মৌসুমী ফল আম লিচু ঝরে পড়েছে। অসংখ্য ঘরবাড়ি ও গাছপালা বিদ্যুতের খুটি উপড়ে পড়েছে।
শুক্রবার সকালে ঝড়ে নিহত ৭ জনের বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম বলেন ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরূপম করা হচ্ছে। ঝড়ে ঘর ও গাছচাপা পড়ে নিহতরা হলো ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি গ্রামের গৃহবধু খোদেজা বেগম(৪০), মৌজা গোমনাতী গ্রামের আব্দুল গনি (৪০)কেকতিবাড়ী ইউনিয়নের আফিজার রহমান(৪০) খানপাড়া গ্রামের জমিরুল ইসলাম(১২),জলঢাকা উপজেলার পূর্ব শিমুলবাড়ি গ্রামের আশিকুর রহমান(২২), ধর্মপাল খুচিমাদা গ্রামের গৃহবধু সুমাইয়া আক্তার (২৮) ও তার তিন মাসের শিশু কণ্যা পরীমনি ও ডিমলা উপজেলার নাউতারা ইউনিয়নের সাতজান গ্রামের জতিন্দ্রনাথ(৬৫) সকালে ধান ক্ষেত দেখতে গিয়ে হার্ড এ্যাটাক করে নিহত হন বলে জানিয়েছেন নাউতারা ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম লেলিন। সকালে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম জলঢাকা,ডেমার,ডিমলা উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ও নিহতদের বাড়িতে গিয়ে খোজ খবর নেন।
অপরদিকে কালবৈশাখীর তান্ডবে জেলার ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া, ডিমলা সদর, খালিশা চাপানি, ঝুনাগাছ চাপানি, ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি, আমবাড়ী, গোমনাতি, বামুনিয়া, জলঢাকা উপজেলার ধর্মপাল, মীরগঞ্জহাট, শিমুলবাড়ীসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের উঠতি বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সহ¯্রাধীন ঘরবাড়ি ও গাছপালা ভেঙ্গে পড়েছে। ওই সব এলাকার বিদ্যুতের সংযোগ লন্ডভন্ড হয়ে যাওয়ায় বিছিন্ন রয়েছে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা।
এ ছাড়া বিভিন্ন সড়কে ভেঙ্গে পড়া বিশাল বিশাল গাছগুলো অপসারনে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন রাত হতে কাজ শুরু করে যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করেছে। স্থানীয় কৃষি বিভাগ জানায় উঠতি বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
এদিকে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার,ডোমার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা ও জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) জহির ইমামসহ বিভিন্ন সরকারী কর্মকর্তা ও ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা মাঠ পর্যায় গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষয়ক্ষতির হিসাব নিকাশ শুরু করেছেন।

Top