নোয়াখালীতে আ’লীগ সভাপতির নাম ভাঙ্গিয়ে ভূমিহীনের জমি দখলের চেষ্টা

received_655028598161598.jpeg

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ-

নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সুবর্নচর উপজেলা চেয়ারম্যানের নাম ভাঙ্গিয়ে চরবাটা ইউনিয়নে এক ভূমিহীন পরিবারের জমি জোরপূর্বক দখল করার অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালী এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। প্রভাবশালী ওই ব্যাক্তি জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ.ন.ম খায়রুল আলম সেলিমের ব্যাক্তিগত সহকারী (পিএ)।

ভুক্তভোগী মোঃ আজাদ উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন; ‘২০০৭ সালে মঞ্জু চেয়ারম্যানের বাজারের পাশে ১৯৮ শতাংশ জায়গা তিনি দখল শর্তে ক্রয় করেন। দীর্ঘ ১১ বছর ধরে তিনি সেখানে বসবাস করছেন এবং আবাদি জমিতে ফসল উৎপাদন করছেন। কিন্তু গত দুই বছর হঠাৎ করে নজরুল জায়গাটি তার দাবি করে। বর্গা চাষী কে নজরুল হুমকি দেয় যাতে আমাকে জমির ফসল না দেয়। এমনকি জোরপূর্বক সে ফসল নিয়ে যায়।

তিনি আরো বলেন এ নিয়ে চরজব্বর থানার ওসি মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে জমির ফসল স্থানীয় ইউপি সদস্যের জিম্মায় দেয়। পরে মীমাংসা ছাড়াই তা নজরুলের কাছে দিয়ে দেয়। এটা শুধুমাত্র একটা কৌশল জোরপূর্বক ফসল নেয়ার।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ হাসান সাংবাদিকদের জানান, জায়গাটি প্রায় ১০ বছর আগে মোঃ আজাদ উদ্দিন ক্রয় করেন। এখন হঠাৎ নজরুল তার বলে দাবি করছে। তিনি আরো বলেন- এ বিষয়টি মীমাংসা করতে চাইলেও তিনি সুষ্ঠুভাবে করতে পারবেন না। কারণ এখানে রাঘব বোয়ালরা সংশ্লিষ্ট।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, জায়গাটি মোঃ আজাদ উদ্দিনের মা তৎকালীন ইউপি সদস্য শাহেদা ইউছুপ এর কাছ থেকে ক্রয় করে দীর্ঘ কয়েক বছর বসবাস করছেন। কিন্তু নজরুল ইসলাম প্রভাব খাটিয়ে তা দখল করে নিয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতির ব্যাক্তিগত সহকারী হওয়ায় কেউই তার সামনে ভয়ে এ বিষয়ে কথা বলে না।

এ বিষয়ে চরবাটা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাশার মঞ্জু জানান; জমিটি নিয়ে বিরোধের ব্যাপারে তিনি জানেন। তবে এক পক্ষ আন্তরিক না হওয়ায় তিনি মীমাংসা করতে পারছেন না। উভয়পক্ষ আন্তরিক হলে বিষয়টি মীমাংসা করবেন বলেও তিনি জানান।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ.ন.ম খায়রুল আলম সেলিম বলেন; তার নাম ব্যবহার করে অপকর্ম করার বিষয়টি তিনি অবগত নয়।

চরজব্বর থানার ওসি নিজাম উদ্দিন সাথে মুঠোফোনে আলাপ করা হলে তিনি জানান; বিষয়টি তার স্মরণে নেই। ভুক্তভোগীকে তিনি পুণরায় থানায় যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন।

অভিযুক্ত মোঃ নজরুল ইসলাম মুঠোফোনে জায়গাটির প্রকৃত মালিক দাবি করেন সাংবাদিকদের কাছে।

Top